কৃত্রিম পা নিয়ে নতুন জীবনে রাসেল সরকার

নোমান মাহমুদ, সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধিঃ অবশেষে কৃত্রিম ‘পা’ নিয়ে নতুন জীবন শুরু করেছেন রাজধানীর যাত্রাবাড়িতে গ্রিন লাইন পরিবহণের একটি বাসের চাপায় বাম পা হারানো সেই রাসেল সরকার।

আজ বহস্পতিবার (১৮ই এপ্রিল) সাভারের পক্ষাঘাতগ্রস্থ্যদের পুনর্বাসন কেন্দ্র (সিআরপি) থেকে তাকে একটি কৃত্রিম পা দেওয়া হয়েছে। সকাল সাড়ে ১০ টা নাগাদ রাসেল সরকারের দেহে কৃত্রিম পা টি সংযুক্ত করেন সিআরপি’র কৃত্রিম অঙ্গ সংযোজন বিভাগের প্রধান মোহাম্মদ শফিক।

এদিকে শরীরে কৃত্রিম পা সংযোজনের পর অনুভুতি প্রকাশ করতে গিয়ে রাসেল সরকার বিডি২৪রিপোর্ট’কে বলেন, “মাত্র এক বছর আগের কথা মনে পড়লে পুরো শরীর শিউরে ওঠে। শরীরে কৃত্রিম পা সংযোজনের পর আবারও আগের জীবনের কথা মনে পড়ে গেলো। সেই সময় (দূর্ঘটনার পর) মনে হয়েছিলো মরে যাই, কিন্ত এখন সিআরপি’তে এসে আমি আবার নতুন জীবন খুজে পেয়েছি। ধন্যবাদ সিআরপি ও এখানকার সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীকে।”

অন্যদিকে রাসেল সরকারের দেহে কৃত্রিম পা সংযোজনের বিষয়ে সিআরপি’র কৃত্রিম অঙ্গ সংযোজন বিভাগের প্রধান মোহাম্মদ শফিক জানান, রাসেল সরকারের দেহে সিআরপি’র পক্ষ থেকে বিনামূল্যে সুইজারল্যান্ডে ইন্টারন্যাশনাল টেকনোলজির কৃত্রিম পা সংযোজন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, “কিছুদিন আগে রাসেল সরকারের পায়ের সম্পূর্ন পরিক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। পরিক্ষা-নিরীক্ষার পর আজ তার শরীরে কৃত্রিম পা সংযোজন করা হলো। তার এই পা নিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পায় ৪ সপ্তাহ সময় লেগে যাবে, আর এই সময়ের মধ্যে নতুন পা দিয়ে চলাফেরাসহ দৈনন্দিন কাজের বিষয়গুলোও তাকে অনুশীলন করানো হবে।”

এবিষয়ে পক্ষাঘাতগ্রস্থ্যদের পুনর্বাসন কেন্দ্রের (সিআরপি) নির্বাহী পরিচালক শফিকুল ইসলাম বলেন, “ রাসেল সরকারের এই দূর্ঘটনার কারনে যেমন সবাই এগিয়ে এসেছে, আমরাও আমাদেও পক্ষ থেকে তার জন্য কিছু করার চেষ্টা করছি। রাসেলকে আমাদের এখানে যে ধরনের সুবিধা দেওয়া সম্ভব আমরা তাকে সব ধরনের সুবিধা দেব।”

উল্লেখ্য, এর আগে ২০১৮ সালের ২৮শে এপ্রিল রাজধানীর যাত্রাবাড়িতে কথা কাটাকাটির জেরে গ্রীন লাইন পরিবহণের একটি বাসের চালক ক্ষীপ্ত হয়ে রাসেল সরকারকে চাপা দেয়। এতে তার বাম পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়