দোলেশ্বরের বিপক্ষে তাসকিনের বোলিং তাণ্ডব

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের শুরুতে দলের সাথে ছিলেন না জাতীয় দলের পেসার তাসকিন।ইনজুরির কারনেই মূলত দলের সাথে নিয়মিত ছিলেন না। ইনজুরি কাটিয়ে ফিরলেন। তবে নিজের নামের সুবিচার করতে পারেননি প্রথম ম্যাচে।

এরপর আসে বড় ধরনের দুঃসংবাদ। মিস করেন মাশরাফি-তামিমদের সাথে ইংল্যান্ডের বিমান। অর্থাৎ বিশ্বকাপ স্কোয়াডে রাখা হয়নি এই গতি দানবকে। আর তাতে ভেঙে পড়েন। দল ঘোষণার পরের দিন দলের সাথে খেলায় যোগ দেননি।

এদিকে দলের সাথে না দেখে তাসকিনকে বিসিবি প্রধান ফোন করে কিছুটা সবুজ ইঙ্গিত দিয়েছেন। আর তাতে বল হাতে ফিরলেন। জ্বলে উঠলেন।বিসিবি কর্তাদের জানিয়ে দিলেন আমাকে না নিয়ে ভুল করছেন না তো?

আজ ১৯ এপ্রিল শুক্রবার সাভারের বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে লিজেন্ডস অব রুপগঞ্জ মাঠে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় প্রাইম দোলেশ্বর। আগে ব্যাট করতে নেমে দলীয় রানে ২ রান করা জসিমউদ্দিনের উইকেট হারায় দলটি।

কিন্তু দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে দলকে ভালোভাবে খেলায় ফেরান সাইফ হাসান ও সৈকত আলি।

এদিকে দলকে বেশ ভালোভাবেই এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন তারা। এ জুটি যখন ক্রমশ বিপদজনক হয়ে ওঠছিল ঠিক তখনই আক্রমণে আসেন তাসকিন। ইনিংসের ১৭তম ও ব্যক্তিগত প্রথম ওভারে ১০ রান খরচ করেন তিনি।

এর আগের ওভারে খরচে বোলিং করলেও সাফল্যর মুখ দেখেন নিজের পরের ওভারেই। ১৯তম ওভারের শেষ বলে ৩৭ রান করা সাইফকে মোহাম্মদ নাইমের হাতে ক্যাচ বানিয়ে দলকে ব্রেক থ্রু এনে দেন তিনি। উইকেট শিকারের ওভারে ব্যয় করেন ৫ রান।

এরপর ব্যক্তিগত তৃতীয় ওভারে এসে আবারও দলকে সাফল্য এনে দেন তিনি। ওভারের দ্বিতীয় বলে এ যাত্রায় ফেরান মার্শাল আইয়ুবকে। ২ রান করে এ ব্যাটসম্যান সাজঘরে ফিরেন ধাওয়ানের হাতে ক্যাচ দিয়ে। ফলে দলীয় ৭৩ রানে তৃতীয় উইকেটের পত ঘটে দোলেশ্বরের।

পরপর দুই ওভারে সাফল্য পাওয়ার পর নিজের আরও দুই ওভার বল করেন তাসকিন। বাকি দুই ওভারে সাফল্য না পেলে প্রথম স্পেলে দুটি উইকেট নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয় তাকে। টানা পাঁচ ওভার বল করে ৩০ রান খরচায় ২ উইকেট শিকারের মাঝে ১৭টি ডট বল করেছেন ডানহাতি এ গতিতারকা। এর পর মার্শাল আইয়ুব ও তাইবুর রহমানকে আউট করেন তাসকিন। শেষে পর্যন্ত ৯ ওভার বল করে ৫৪ রান দিয়ে ৪ উইকেট তুলে নেন তাসকিন।

এদিকে ৪৫ ওভারে দোলেশ্বরের সংগ্রহ সব উইকেট হাড়িয়ে ২০৫ রান। এদিকে ৫১ রান নিয়ে অর্ধশতক পূর্ণ করে সৈকত।