নির্দেশনা মানছে না আ.লীগ নেতার সিএনজি স্টেশন

নোমান মাহমুদ, সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধিঃ নীতিমালা বা নির্দেশনা যাই থাক, তা মানতে নারাজ সাভারের ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের উলাইল এলাকায় অবস্থিত মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক শিবালয় উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম খানের মালিকানাধীন সিএনজি (সংকুচিত প্রাকৃতিক গ্যাস) সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ‘সাভার সিএনজি এন্ড রিফুয়েলিং স্টেশন’।

নিয়মবহির্ভূত ও ঝুকিপূর্ণ পদ্ধতিতে তৈরী পোশাক কারখানার কাভার্ড ভ্যানের ভিতর স্থাপন করা শত শত সিলিন্ডারে অবৈধভাবে গ্যাস সরবরাহ, বিকাল ৫টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চার ঘন্টা গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রাখার নির্দেশনা উপেক্ষা করে গ্যাস সরবরাহসহ নানা অনিয়মে জর্জরিত সিএনজি স্টেশনটি।

এদিকে দফায় দফায় সতর্ক করার পরেও নিয়ন্ত্রন করা যাচ্ছে না সিএনজি স্টেশনটির অনিয়মগুলো। সর্বশেষ স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের অভিযোগের মুখে বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রনালয় কর্তৃক বিকাল ৫টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রাখার নির্দেশনা উপেক্ষা করে গ্যাস সরবরাহের প্রমান পেয়ে আবারও সিএনজি স্টেশনটিকে সতর্ক করে চিঠি ইস্যু করেছে তিতাস কর্তৃপক্ষ।

সিএনজি স্টেশনটিকে সতর্ক করার বিষয়টি নিশ্চিৎ করে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিঃ এর (সাভার জোন) ব্যবস্থাপক প্রকৌঃ আবু সাদাৎ মোহাম্মদ সায়েম বিডি২৪রিপোর্ট’কে বলেন, “জ্বালানী মন্ত্রনালয় কর্তৃক বিকাল ৫টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত গ্যাস সরবরাহ বন্ধের নির্দেশনা উপক্ষো করে সিএনজি স্টেশনটি গ্যাস সরবরাহ করছে এমন অভিযোগ পেয়ে আমরা স্টেশনটির গত ৩ মাসের মিটার রেকর্ড ডাউনলোড করি।

মিটারের শেষ তিন মাসের রেকর্ডেই বন্ধ থাকার সময়ে স্টেশনটি থেকে নির্দেশনা উপেক্ষা করে গ্যাস সরবরাহের প্রমান পাওয়া গেছে। আর এই অনিয়মের অভিযোগে গত বৃহস্পতিবার (১৮ই এপ্রিল) সাভার সিএনজি এন্ড রিফুয়েলিং স্টেশনটির মালিক আব্দুর রহিম খান’কে মৌখিক ও দাপ্তরিকভাবে চিঠি প্রদানের মাধ্যমে সতর্ক করা হয়েছে। এর পরেও যদি তারা আবার অনিয়ম করে তবে আমরা বিধি মোতাবেক স্টেশনটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করবো।”

এদিকে তিতাস কর্তৃপক্ষ অনিয়মের অভিযোগে সিএনজি স্টেশনটি’কে সতর্ক করে চিঠি দেওয়ার কথা জানালেও বিষয়টি অস্বীকার করেছে সাভার সিএনজি এন্ড রিফুয়েলিং স্টেশনটির ব্যবস্থাপক। অনিয়মের সত্যতা পাওয়ার পর তিতাস কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সতর্ক করার বিষয়ে জানতে বৃহস্পতিবার (১৮ই এপ্রিল) সন্ধ্যায় সিএনজি স্টেশনটিতে গেলে সেখানে দায়িত্বরত ব্যবস্থাপক সতর্ক করার বিষয়টি প্রতিবেদকের নিকট অস্বীকার করেন। এক পর্যায়ে তিনি প্রতিবেদকের প্রতি উত্তেজিত হয়ে বলেন, “বুঝিতো, সাংবাদিকরা টাকা খাওয়ার লাইগা এইসব করতাছে… আপনারা যা খুশি লেখেনগা, লেইখা কিছু করতে পারলে করেন”।

অন্যদিকে এর আগে বিগত ২০১৮ সালের ৬ই সেপ্টেম্বর সিএনজি স্টেশনটি থেকে অবৈধ ও ঝুকিপূর্ণ উপায়ে গ্যাস সংগ্রহ করে শিল্প কারখানায় ব্যবহারের অভিযোগে সাভারের আল-মুসলিম গ্রুপকে নগদ ২৫ হাজার টাকা জরিমানা এবং সাভার সিএনজি এন্ড রিফুয়েলিং স্টেশনকে মৌখিকভাবে সতর্ক করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। সেসময় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ রাসেল হাসান। তবে দফায় দফায় স্টেশনটিকে সতর্ক করার পরেও কোন কিছুই তোয়াক্কা করছে না সিএনজি স্টেশনটির কর্তৃপক্ষ।

সুত্র বলছে, মূলত ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের নেতা হওয়ার সুবাদেই নানা অনিয়ম করা সত্ত্বেও বারবার পার পেয়ে যাচ্ছে মানিকগঞ্জ জেলা আ.লীগ নেতার মালিকানাধীন সিএনজি (সংকুচিত প্রাকৃতিক গ্যাস) সরবরাহকারী এই প্রতিষ্ঠান।

এছাড়াও মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রহিম খান এর আগেও নিজ এলাকায় বিভিন্ন অপকর্মের দায়ে একাধিকবার আলোচনায় এসেছেন। ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে মানিকগঞ্জ জেলার শিবালয় উপজেলার হিন্দু সম্প্রদায়ের উপাসনালয় শীলপাড়া সর্বজনীন মন্দিরের প্রতিমা ভাংচুরের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলাও করেছিলো মন্দির কমিটি। সর্বশেষ শিবালয় উপজেলা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসাবে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপকর্মের অভিযোগ তুলে প্রধানমন্ত্রীর নিকট লিখিত অভিযোগ করেছিলো সেখানকার স্থানীয়রা।

এছাড়াও মন্দিরের রাস্তা বন্ধ করে সড়ক ও জনপথ বিভাগের জমি দখল করে হাসপাতাল নির্মানের কাজ শুরুর পর সওজ বিভাগের পক্ষ থেকে অবৈধ স্থাপনা অপসারনে চিঠি দেওয়ার পরও তা অপসারন না করায় ২০১৭ সালের ৩০ এপ্রিল সওজের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মতিয়ার রহমান আব্দুর রহমানের বিরুদ্ধে থানায় জিডি করেন।