নুসরাতের হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা

অবশেষে সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন গায়ে কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে দেওয়া ফেনীর সেই মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি।

এদিকে নুসরাত জাহান রাফির মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে এই মাদ্রাসাছাত্রীর গায়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এর আগে মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির মামলা তুলে নিয়ে রাজি না হওয়ায় ফেনীর সোনাগাজীর এই তরুণীর গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়েছিল গত ৬ এপ্রিল।

এরপর পাঁচ দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে গতকাল ১০ এপ্রিল বুধবার রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মৃত্যু হয় নুসরাতের।

এর আগে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে পাঠাতে চেয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু অবস্থা গুরুতর হওয়ায় স্থানান্তরে সায় দেননি চিকিৎসকরা।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং জানায়, এই মাদ্রাসাছাত্রীর দুঃখজনক মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন শেখ হাসিনা। তিনি নুসরাতের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে নুসরাতের হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন।’

নুসরাতের শ্লীলতাহানির মামলায় সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ দৌলাকে আগেই গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। হত্যাচেষ্টার মামলা হওয়ার পর তাকে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

এরপর সোনাগাজী থানায় আরেকটি মামলা করেন নুসরাতের ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান। অধ্যক্ষ সিরাজসহ মোট আটজনের নাম উল্লেখসহ বোরকা পরা অজ্ঞাতনামা আরও চারজনকে আসামি করা হয়েছে এতে। তাছাড়া নুসরাত আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় বদলি করা হয়েছে সোনাগাজী থানার ওসিকেও।