পরকীয়ায় সবচেয়ে বেশি উপভোগ করে যারা

হয়তো কোনও নারীর কথাটা শুনে আঁতে ঘা লাগবে, কিন্তু তাতে সন্দেহ নেই। বর্তমান সময়ে পুরুষদের বিরুদ্ধে ঝুড়ি ঝুড়ি অভিযোগ তাদের। তারা নাকি বিয়ে করা সত্ত্বেও পরকীয়া করে। স্ত্রী বর্তমান থাকা সত্ত্বেও অন্য একজনের সঙ্গে সম্পর্ক জড়িয়ে পড়ে তারা। পুরুষদের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ একেবারে মিথ্যা তা নয়। তবে আসল ঘটনা কিন্তু উল্টো। আপনি জানেন কি, পুরুষের থেকে বেশি পরকীয়া উপভোগ করে নারীরা?

একটি সমীক্ষায় সম্প্রতি এমন তথ্যই প্রকাশ পেয়েছে। কয়েকজনকে নিয়ে একজন গবেষক একটি গবেষণা করেছিলেন। তার টার্গেট ছিল পরকীয়া করে এমন মানুষ। নারীই হোক বা পুরুষ। আর সেই গবেষনায় কিছু অবাক করা বিষয় উঠে আসে। প্রায় এক হাজার মানুষের উপর গবেষণা থেকে যে তথ্য উঠে এসেছে তা ‘জার্নাল অফ সেক্সুয়ালিটি’-তে প্রকাশ পেয়েছে।

তাদের গবেষণায় বলা হয়, পরকীয়ার পিছনে রয়েছে স্বামী বা স্ত্রীকে প্রতারণা করার আনন্দ। এ এক অদ্ভুত আনন্দ। তাই স্বামী বা স্ত্রীকে প্রতারণা করে অনেকেই পরকীয়ায় জড়ায়। যৌনতা এক্ষেত্রে অন্যতম প্রধান বিযয়। সপ্তাহে অন্তত দু’বার পরকীয়ার পার্টনারের সঙ্গে এরা সেক্স করে। শুধু যৌনতা নয়। মানসিক সুখও একটা বড়সড় জায়গা দখল করে রেখেছে।

তবে এ ক্ষেত্রে বেশিরভাগ সময় নারীদের ক্ষেত্রেই দেখা যায়। অনেক সময় নারীরা বিয়ের পর সুখে থাকে না। সাংসারিক অশান্তিই তাদের সংসার বিমুখ করে দেয়। যে কারণে স্বামীকে ছেড়ে অন্য পুরুষের সঙ্গে সম্পর্কে জড়ায় নারীরা।

এ বিষয়টি অনেকে জানে, সে সম্পর্ক চিরস্থায়ী নয়। হয়তো তা অলীক সুখ। কিন্তু ক্ষণিকের শান্তি তখন তাদের কাছে মহার্ঘ্য হয়ে ওঠে। কিন্তু পুরুষের ক্ষেত্রে এটি দেখা যায় না। তবে ব্যতিক্রম কি আর নেই?

প্রকাশিত গবেষণায় বলা হয়, পরকীয়া সম্পর্কের ক্ষেত্রে নারীদেরই পাল্লা ভারী। কারণ সম্পর্কে জড়ানোর ক্ষেত্রে তারাই এগিয়ে আসে আগে, দায়িত্ব নেয় বেশি। কারণ গবেষণা বলছে, মেয়েদের মধ্যে আবেগ থাকে বেশি। সম্পর্ক খারাপ হতে শুরু করলে তা তারা মেনে নিতে পারে না। তাই পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে তারা। তবে ব্যতিক্রম এক্ষেত্রেও আছে। শুধুমাত্র যৌন চাহিদা মেটাতেও অনেক সময় নারীরা সম্পর্কে জড়ায়।