‘বিশ্বকাপের সমীকরণ পাল্টে দিবে বাংলাদেশ’

ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলসে ক্রিকেট বিশ্বকাপের ১২তম আসর শুরু হবে। এরই মধ্যে অংশগ্রণকারী ১০টি দল চূড়ান্ত স্কোয়াড ঘোষণা করেছে। সর্বশেষ গত ২৪ এপ্রিল উইন্ডিজের ১৫ সদস্যের দল ঘোষণার মাধ্যমে শেষ হল আসন্ন বিশ্বকাপে অংশগ্রহণকারী ১০ দলের স্কোয়াড ঘোষণা।

আগামী ৩০ মে ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলসে গড়াবে এবারের ক্রিকেটের বৈশ্বিক আসরে সবচেয়ে অভিজ্ঞ দল বাংলাদেশ। আর সেই দলটিকেই নেতৃত্ব দেবেন মাশরাফি। তিনি ২০১৫ সালে দ্বিতীয় মেয়াদে অধিনায়কত্ব পাওয়ার পর ক্রিকেট বিশ্বে টাইগারদের উচ্চাসনে বসিয়েছেন। এবারের আসরে কোনো অধিনায়কই টানা দ্বিতীয়বার দলকে নেতৃত্ব দিতে যাচ্ছেন না।

২০১৯ আসর ইতিমধ্যে প্রতিটি দল চূড়ান্ত স্কোয়াড ঘোষণা করায় ১০ অধিনায়ক পেয়ে গেছে। বাংলাদেশেকে নেতৃত্ব দিবে মাশরাফি বিন মুর্তজা। আর বাংলাদেশের মাশরাফি বিন মুর্তজাকে সেরা অধিনায়ক হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন পাকিস্তানের সাবেক স্পিডস্টার শোয়েব আখতার। শোয়েব আখতারের পর বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকে প্রশংসায় ভেজালেন পাকিস্তানের সাবেক দলনায়ক রশিদ লতিফ।

তিনি মনে করেন, ইনজুরির সঙ্গে লড়াই করার পাশাপাশি দলকে একত্রে নিয়ে চলছেন বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক। মাশরাফির অনন্য নেতৃত্বে ২০১৪ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত দারুণ ক্রিকেট খেলেছে বাংলাদেশ উল্লেখ করেন রশিদ লতিফ।

তিনি বলেন, পায়ে বড় ধরনের ইনজুরি থাকা সত্ত্বেও সে দলকে এগিয়ে নিয়ে চলেছে। ইনজুরি নিয়ে এভাবে এগিয়ে চলা বেশ কঠিন। ও পুরো দলকে ঐক্যবদ্ধ করে রেখেছে। দেশটিতে তার অনেক সুনাম রয়েছে।

রশিদ লতিফ বলেন, ২০১৪, ২০১৫, ২০১৬ সালে দারুণ ক্রিকেট খেলেছে বাংলাদেশ। ওয়ানডেতে ঘরের মাঠে ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা ও নিউজিল্যান্ডকে হারিয়েছে দলটি। ২০১৫ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডকে বিদায় করে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলে তারা। টাইগার ব্যাটসম্যানরা অসাধারণ স্ট্রাইক রোটেট করে খেলতে পারে। এটি তাদের জন্য প্লাস পয়েন্ট।

এদিকে, বাংলাদেশ দল বিশ্বকাপের পয়েন্ট টেবিলে বড় রদবদল আনতে সক্ষম হবে বলেন মনে করেন তিনি। তার দাবি, বিশ্বকাপের ফেভারিট দলগুলোকে হারিয়ে দিয়ে সমীকরণ পাল্টে দিবে মাশরাফির বাংলাদেশ। টাইগাররা ২০০৭ সালের বিশ্বকাপে শক্তিশালী ভারতকে হারিয়ে টুর্নামেন্ট ছাড়া করেছিল। এরপর সেরা আটের লড়াইয়ে দক্ষিণ আফ্রিকাকে পরাজিত করে। পরবর্তীতে ২০১১ সালে ইংল্যান্ডকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ।

২০১৫ বিশ্বকাপে আবার ইংল্যান্ডকেই হারিয়ে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছিল টাইগাররা, যা বাংলাদেশের বিশ্বকাপ ইতিহাসে সবচেয়ে বড় অর্জন।

তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপে বড় দলগুলোর গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ যেগুলো হবে সেখানে যদি বাংলাদেশ, আফগানিস্তান, পাকিস্তান, উইন্ডিজ কোনো বড় দলকে হারিয়ে দেয় তাহলে বিশ্বকাপের পয়েন্ট টেবিলে অনেক বড় পরিবর্তন আসবে। বাংলাদেশ দল দারুণ ভারসাম্যপূর্ণ, তাদের খেলার ধরণ বাকিদের থেকে আলাদা নয়। আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলতে সক্ষম তারা। সুতরাং টুর্নামেন্টটি জমজমাট হবে।’