৪৪ বছর পর শেকড়ের সন্ধানে জামালপুরে নেদারল্যান্ডসের তরুণী

নিজের নানি এবং খালার সন্ধানে বাংলাদেশে এসেছেন নেদারল্যান্ডসের তরুণী নওমি উইলেমসেন (২১)। মা লিপি বেগমের হারানো পরিবারের খোঁজে জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলার কাজিয়ারচর ও কাজিরবাড়ি গ্রামে আসেন তিনি।

গত বুধবার তিনি মাদারগঞ্জ উপজেলার কাজিয়ারচর ও কাজিরবাড়ি গ্রামে আসেন।

নওমির সঙ্গে আসেন ভারতের আইনজীবী অঞ্জলি পাওয়ার। তিনি জানান, ১৯৭৪ সালে জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলার কাজিয়ারচর গ্রাম বা কাজিরবাড়ি গ্রামের মো. আরসি শেখ দুই মেয়েসহ তার সন্তানসম্ভবা স্ত্রী সখিনা বেগমকে রেখে মারা যান। আর তার মৃত্যুর দুই মাস পর এক কন্যাশিশুর জন্ম দেন সখিনা বেগম। মেয়ের নাম রাখা হয় লিপি বেগম।

কিন্তু সখিনা বেগম তিন মেয়েকে লালনপালন করা কষ্টসাধ্য হয়ে ওঠে তার। এ জন্য নিরুপায় হয়ে তিন মাস বয়সী শিশু লিপি বেগমকে ঢাকার একটি অরফানেজ ট্রাস্টে রেখে আসেন তিনি। ওই অরফানেজ ট্রাস্ট থেকে ১৯৭৭ সালে নেদারল্যান্ডসের একজন নাগরিক লিপি বেগমকে দত্তক নিয়ে নিজ দেশে নিয়ে যান।

এরপর সেখানে বড় হওয়ার পর থেকেই তার মা-বোনের খোঁজ করতে থাকেন লিপি বেগম। জন্মের প্রায় ৪৪ বছর পর গত বছর স্বামী জেসপিয়ার উইলেমসেনকে নিয়ে বাংলাদেশে এসেছিলেন লিপি বেগম।

অরফানেজ ট্রাস্টের ঠিকানার সূত্র ধরে মাদারগঞ্জের কাজিয়ারচর ও কাজিরবাড়ি গ্রাম ঘুরে পরিবারের কথা জানতে পারেন তিনি। তবে মা-বোনদের খুঁজে পাননি তিনি। তাই মেয়ে নওমি এসেছেন মায়ের পরিবারকে খুঁজে বের করতে।

এ বিষয়ে নওমি বলেন, আমি আশাবাদী যে আমার নানি আর দুই খালাকে খুঁজে পাব। এ ব্যাপারে সবার সহযোগিতা চাই।