কিশোরগঞ্জে বাসে নার্সকে ধর্ষণের পর হত্যা

কিশোরগঞ্জে যাত্রীবাহী বাসে শাহিনুর আক্তার তানিয়া নামে এক নার্সকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার রাত সাড়ে আট টায় ভৈরব-কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের গজারিয়া জামতলী নামক স্থানে এই ঘটনা ঘটে।

নিহত শাহিনুর কটিয়াদী উপজেলার লোহাজুরী ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে।

তানিয়া রাজধানীর ইবনে সিনা হাসপাতালে চাকরি করতেন। সোমবার বিকেলে তিনি সোমবার বিকেলে তিনি বিমানবন্দর থেকে স্বর্ণলতা পরিবহনের একটি বাসে ওঠেন। বাসে ওঠার পর তানিয়া তার বাবা ও ভাইদের সাথে মোবাইল ফোনে বেশ কয়েকবার কথা বলেন।

রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাসটি কটিয়াদী বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছলে তিনি ভাইকে মোবাইল ফোনে জানান পাঁচ সাত মিনিট লাগবে তার পিরিজপুর পৌঁছাতে।

স্বজনদের ধারণা, গাড়িতেই তানিয়াকে ধর্ষণের পর গলায় ওড়না পেঁচিয়ে তাকে হত্যা করা হয়। এরপর রাত ১১টার দিকে কটিয়অদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দুর্ঘটনার কথা বলে তানিয়ার লাশ ধর্ষণকারীরা ফেলে রেখে চলে যায়। হাপসাতালের রেজিস্ট্রার সূত্রে তানিয়ার লাশ আনয়নকারীর নাম দেয়া হয়েছে আল আমিন। পিতা ওয়াহিদুজ্জামান, গ্রাম-ভেঙ্গারদি, কাপাসিয়া, গাজীপুর।

তানিয়ার ভাই কফিল উদ্দিন সুমন জানান, তার বোনের সাথে একটি এলইডি ১৯ইঞ্চি টেলিভিশন, একটি স্যামসাং অ্যানড্রয়েড মোবাইল ফোন ও বেতনের ১৫-১৬ হাজার টাকা ছিল।

এই ঘটনায় ড্রাইভার নূরুজ্জামান ও তার সহকারীকে আটক করেছে পুলিশ। শাহিনুরের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন, ব্যাগ, কাপড়-চোপড় পাওয়া গেছে। ময়না তদন্তের জন্য লাশ কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হবে।