ছুটির দিনেও রোগী দেখেন হাসপাতালে ছুটে যান ভুটানের প্রধানমন্ত্রী

ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং, যিনি সাপ্তাহিক ছুটির দিন শনিবার রোগী দেখে সময় কাটান। অন্য সাধারণ চিকিৎসকদের মতোই এদিন কর্মব্যস্ত থাকেন তিনি। বাংলাদেশের মেডিকেলে পড়াশুনা করা বিভিন্ন গুণের অধিকারী এই চিকিৎসক সম্প্রতি বাংলাদেশ সফরে এসে ব্যাপক প্রশংসিত হন।

জানা গেল, তার আরও একটি গুণের কথা। প্রধানমন্ত্রী হয়েও ছুটির দিনে রোগীদের চিকিৎসা করেন তিনি। তিনি তার ছুটির দিনে হাসপাতালে রোগীদের সেবা করতে পছন্দ করেন। গত শনিবার দেশটির ‘জিগমে দরজি ওয়াংচুক হাসপাতালে’ এক রোগীর সফল সার্জারি সম্পন্ন করেন তিনি।

ডা. লোটে শেরিং পড়ালেখা করেছেন বাংলাদেশের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে। তিনি এই কলেজের ২৮তম ব্যাচের ছাত্র ছিলেন। এখান থেকে এমবিবিএস পাস করেন। পরে বাংলাদেশেই জেনারেল সার্জারি বিষয়ে তিনি এফসিপিএসও করেন। এরপর ২০১৩ সালে রাজনীতিতে যোগ দেন লোটে শেরিং। অল্প সময়ের মধ্যেই তিনি রাজনীতিতে ব্যাপক সফলতা লাভ করেন। প্রায় সাড়ে ৭ লাখ লোকের দেশ ভুটানে গত বছর প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত হন লোটে শেরিং।

আন্তর্জাতিক একটি বার্তা সংস্থাকে শেরিং বলেন, কেউ গলফ খেলে, কেউ তীরন্দাজি করে কিন্তু আমি মানুষের সেবা করতে পছন্দ করি। আমি আমার ছুটির দিনগুলো এখানে (হাসপাতালে) কাটাই।

প্রতিবেদনে হয়েছে, বৃহস্পতিবার সকালে শিক্ষানবিশ ও চিকিৎসকদের পরামর্শ দেন, শনিবার রোগী দেখেন এবং রবিবার পরিবারকে সময় দেন শেরিং। চিকিৎসকের পোশাক পড়ে হাসপাতালে ব্যস্ত সময় পাড় করেন শেরিং। এছাড়া ওই হাসপাতালে নার্স ও অন্যরা যে যার মত কাজ করে যান। কেউ প্রধানমন্ত্রীকে ভ্রূক্ষেপ করেন না।