বিশ্বকাপের বাজে একাদশে হাবিবুল বাশার

প্রতি চার বছর পর পর আসে ওয়ানডে ক্রিকেট বিশ্বকাপ। ক্রিকেটের বৈশ্বিক এই আসরে সব ক্রিকেটারেরই স্বপ্ন থাকে খেলার। তবে সুযোগ পাওয়া অনেকের জন্য আবার এটি দুঃস্বপ্ন হয়ে থাকে। তেমনই ক্রিকেটার নিয়ে বিশ্বকাপের সর্বকালের বাজে একাদশ সাজিয়েছে ক্রিকইনফো। যেখানে রাখা হয়েছে বাংলাদেশে সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল বাশারকে।

মূলত সুযোগ পেয়েও যারা বিশ্বকাপে নিজেদের মেলে ধরতে ব্যর্থ হয়েছেন তাদের নিয়েই এই একাদশ। এ দলের অধিনায়ক অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপ জয়ী দলনেতা অ্যালান বোর্ডার।

তিন নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে রাখা বাশারকে নিয়ে ক্রিকইনফো জানায়, টেস্ট খেলুড়ে দেশ হওয়ার প্রথম দশকে বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান হাবিবুল। তবে ওয়ানডেতে তেমন প্রভাব ফেলতে পারেনি সে। এমনকি ওয়ানডেতে তার পুরো ক্যারিয়ারে গড় ২১.৬৮, খুবই বাজে। আর বিশ্বকাপে খেলা ১১টি ম্যাচে তো গড় সেখানের অর্ধেকেরও কম (১০.৫০)।

১৯৯৯-এ বাংলাদেশের প্রথম বিশ্বকাপে খেলা হয়নি বাশারের। তবে ২০০৩ বিশ্বকাপে কানাডা ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শূন্য রানে মাঠ ছাড়তে হয় তাকে।

২০০৭ বিশ্বকাপে, যেখানে বাংলাদেশ ইতিহাস সৃষ্টি করে সুপার এইটে খেলে। ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দলকে হারিয়ে চমক দেখায়, তবে সেবারও হাসেনি বাশারের ব্যাট। ১৩.১২ গড়ে করেছেন ১০৫ রান। এই পারফরম্যান্স তার ক্যারিয়ারের বাজে ভূমিকা রেখেছে। তিন মাস পরেই অধিনায়কত্ব হারান। আর এক বছরের কম সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ দল থেকেই ছিটকে যান।

এদিকে এই দলে বাশার ছাড়াও আছেন বেশ কয়েকজন সাবেক তারকা ক্রিকেটার। যারা পুরো ক্যারিয়ারে সেরা সময় কাটালেও বিশ্বকাপে ছন্দে ছিলেন না।

বাজে একাদশের স্কোয়াড: নাসির জমশেদ (পাকিস্তান), রমেশ কালুভিতারানা (শ্রীলঙ্কা), হাবিবুল বাশার, ইনজামাম-উল-হক, অ্যালান বোর্ডার (অধিনায়ক-অস্ট্রেলিয়া), কিথ আর্থারটন (ওয়েস্ট ইন্ডিজ), মনোজ প্রভাকর (ভারত), জন ব্রেসওয়েল (নিউজিল্যান্ড), টনি সুজি (কেনিয়া), শ্রীনিবাস ভেঙ্কাটরাঘবান (ভারত), জেমস অ্যান্ডারসন (ইংল্যান্ড)।