রশিদ-নবীর ওপর তাণ্ডব চালিয়ে সেঞ্চুরি করলেন বাবর আজম

আসন্ন বিশ্বকাপকে সামনে রেখে এরই মধ্যে উত্তেজনা শুরু হয়েছে। আর মাত্র ৫ দিন বাকি। আজ শুক্রবার থেকে শুরু হয়েছে প্রস্তুতি ম্যাচ। প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে মাঠে নেমেছে পাকিস্তান-আফগানিস্তান। বাংলাদেশ সময় ৩.৩০ মিনিটে খেলা শুরু হয়েছে ।

এদিন টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাকিস্তান। ব্যাট করতে নেমে ভালো শুরু করে দুই ওপেনা ইমাম-উল-হক-ফখর জামান। কিন্তু দলীয় ৪৭ রানে মাথায় ওপেনার ইমাম-উল-হক ফেরান হামিদ হাসান। ৩৫ বলে ৩২ রান করেন তিনি। ইমাম-উল-হক ভালোই সঙ্গ দিচ্ছিলেন ফখর জামান। কিন্তু নবীর ঝড়ে বিপর্যয়ে পাকিস্তান। পরপর দুই উইকেট তুলে নিলেন তিনি। ওপেনার ফখর জামান ও হারিস সোহেলকে তুলে নিলেন।

২৩ বলে ২ চারে ১৯ রান করেন ফখর। আর হারিস সোহেল করেন ২ বলে ১ রান। এরপর রশিদ খানের আঘাত। আক্রমনে এসেই সাফল্য এনে দিলেন। মোহাম্মদ হাফিজকে মাত্র ১২ মাথায় আউট করেন তিনি। ২০ বল খেলে এ রান করেন হাফিজ। সবাই যখন বিপর্যয়ে তখন এক প্রান্তে অর্ধশকত হাঁকিছেন বাবর আজম। ৫১ বলে ৫০ রান করে তিনি। ৭টি চার হাঁকা এই অর্ধশতকে।

এরপর বিপর্যয় কাটিয়ে উঠে পাকিস্তান। বাবরকে সঙ্গ দিচ্ছেন শোয়েব মালিক। অফগাদের ওপর তাণ্ডব চালিয়ে সেঞ্চুরির পথে বাবর আজম। অন্যদিকে, অর্ধশকের দিকে শোয়েব মালিক। তবে আক্ষেপ নিয়ে ফিরে যান শোয়েব মালিক। ৪৪ রানে নবীর বলে নাজিবুল্লাহ হাতে ধরা পড়ে ফিরে যাব। এরপর ফিরে যান অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। রশিদ খানে বলে স্টাম্প আউট হয়ে ফিরে যান। ১০ বলে ১৩ রান করে সরফরাজ।

তবে নিজের আরেকটি মাইলফলক স্পর্শ করলেন বাবর আজম। সবাই আউট হলেও নিজের প্রান্ত আগলে রেখে তুলে নেন আরেকটি সেঞ্চুরি। ২টি ছয় ও ৯টি চারে সাহায্যে ৯৯ বলে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পাকিস্তানের সংগ্রহ ৪২.৪ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৩০ রান।

পাকিস্তান স্কোয়াড: ইমাম-উল-হক, ফখর জামান, বাবর আজম, মোহাম্মদ হাফিজ, শোয়েব মালিক, সরফরাজ আহমেদ (অধিনায়ক), ইমাদ ওয়াসিম, শাদাব খান, হাসান আলী, মোহাম্মদ আমির, ওয়াহাব রিয়াজ, হরিস সোহেল, আসিফ আলী, শহীদ আফ্রিদি, মোহাম্মদ হাসানাইন।

আফগানিস্তান স্কোয়াড: মোহাম্মদ শাহজাদ, হযরতউল্লাহ জাজাই, রহমত শাহ, হাশমতাউল্লাহ শহীদী, আসগর আফগান, মোহাম্মদ নবী, নাজিবুল্লাহ জাদরান, গুলবদীন নায়েব (অধিনায়ক), রশিদ খান, দালাত জাদরান, মুজিব উর রহমান, নূর আলী জাদরান, সামুউল্লাহ শেনওয়ারী, আফতাব আলম, হামিদ হাসান।