আমার চোখে সবাই একেকজন সাইফউদ্দিন: সাক্ষাৎকারে সাইফউদ্দিনের মা

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সময়ের সেরা আবিষ্কার সাইফউদ্দিন। বোলিংয়ের পাশাপাশি ব্যাট হাতেও এ পর্যন্ত ১৭ ওডিআই ম্যাচ খেলে একটি অর্ধশতক হাঁকিয়েছেন তিনি। এমন একজন অলরাউন্ডারের অভাব বাংলাদেশ দলে ছিল সবসময়। চলতি বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত বল হাতে ৯ উইকেট নিয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারের তালিকায় পঞ্চম স্থানে আছেন তিনি।

সাইফউদ্দিনের এমন পারফরম্যান্সে বেশ উচ্ছ্বসিত সাকিব-মাশরাফি। নিয়মিত ফর্ম ধরে রেখেই সিনিয়রদের ডিঙিয়ে বাংলাদেশ জাতীয় দলের একাদশে থিতু হয়েছেন সাইফউদ্দিন। বিশ্বকাপের আগে আয়ারল্যান্ডে অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্টেও বল হাতে উজ্জ্বল ও সপ্রতিভ ছিলেন তিনি।

এদিকে, অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিনের এমন পারফরম্যান্স মাঠে ও টিভিতে দেশবাসী উপভোগ করলেও তা ঠিকমতো দেখা হয়ে ওঠেনি সাইফউদ্দিনের মায়ের। তবে ছেলের খেলা দেখেন না তিনি। তিনি নিজেই জানালেন সে কথা।

এ বিষয়ে গণমাধ্যমকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সাইফউদ্দিনের মা জানান, ‘ছেলের খেলা দেখতে পারি না আমি। বাংলাদেশের খেলা দেখতে বসি, কিন্তু সাইফ বোলিংয়ে বা ব্যাটিংয়ে এলে আমি চলে যাই। ওর খেলা দেখতে পারি না।

দুশ্চিন্তা ও চাপকেই এর কারণে সাইফউদ্দিনের খেলা দেখেননা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সাইফ ভালো করবে নাকি খারাপ করবে- এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকি। ভালো খেললে তো আল্লাহর কাছে অশেষ শুকরিয়া। খুশির শেষ নেই। দেশের সবার মতো নিজের কাছেও ভালো লাগে। কিন্তু ওকে টিভিতে দেখলেই শঙ্কা জাগে। যদি খারাপ করে! তা হলে তা দেখতে কষ্ট লাগে খুব। এ আশঙ্কায় ওর ব্যাটিং-বোলিং আমি দেখি না। পরে পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞেস করে জেনে নিই ছেলে কী করল!’

সাইফউদ্দিনের জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার সুখস্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার সুখবর সর্বপ্রথম ফোন করে সে আমাকে জানিয়েছিল।

খবরে বেশ খুশি হয়েছিলেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘খেলার প্রতি আমার ছেলের অনুরাগ দেখে অনেকেই মন্তব্য করত যে, যতই ভালো খেলুক, লোক ছাড়া জাতীয় দলে খেলা সম্ভব নয়। কিন্তু আল্লাহর অসীম রহমতে সে নিজের চেষ্টায় এগিয়ে গেছে এবং সেসব মন্তব্যকে ভুল প্রমাণিত করে জাতীয় দলে যোগ দিয়েছে।’

এদিকে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অন্য সব সদস্যের কথাও জানান সাইফউদ্দিনের মা। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সব ক্রিকেটার আমার সন্তানের মতো। সবাই আমার চোখে একেকজন সাইফউদ্দিন। নামাজ শেষে আমি সাইফউদ্দিনের জন্য যেমন দোয়া করি, তেমনি অন্যদের জন্যও দোয়া করি। আমি চাই মাশরাফি, তামিম, সাকিব, মুশফিক, রিয়াদ এরা সবাই যেন ভালো খেলে আর দেশের জন্য জয় আনে।’