এক ম্যাচের ব্যবধানে ফিঞ্চকে হটিয়ে ফের সবার শীর্ষে সাকিব

বাংলাদেশের বিশ্বকাপ মিশন যেন পুরোটাই সাকিব ময়। প্রথম দুই ম্যাচ টানা হাফসেঞ্চুরির পর। পরবর্তী দুই ম্যাচে টানা দুটি সেঞ্চুরি করে রেকর্ড সৃষ্ট করেছেন। এর আগে দুটি টানা সেঞ্চুরি করেন মাহমুদউল্লাহ। গেল বিশ্বকাপে তিনি পরপর দুটি সেঞ্চুরি হাকান।

আর এবার তার রেকর্ডে ভাগ বসালেন বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। সাকিব এই রেকর্ডের পাশাপাশি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পক্ষে সবচেয়ে দ্রুততম সেঞ্চুরি মালিক। ৮৩ বলে ১৩ চারে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন সাকিব। ৯৯ বলে ১৬ টি চার হাঁকিয়ে ১২৪ রানে অপরাজিত থেকে দল রেকর্ডীয় জয় উপহার দেন। এ বিশ্বকাপেই ইংলিশদের বিপক্ষে ১১৯ বলে ১২টি চার ও এক ছক্কায় ১২১ রান করেন সাকিব।

মাত্র চার ইনিংসে বিশ্বকাপে মাহমুদউল্লাহ ৬ ইনিংসে ৩৬৫ রানকে ছাড়িয়ে নভজ্যোত সিং সিধু, শচীন টেন্ডুলকার, গ্রায়েম স্মিথ, কুমার সাঙ্গাকারা, মার্ক ওয়াহ, রাহুল দ্রাবিড়, রিকি পন্টিংদের পাশে।

এদিকে, এক ম্যাচের ব্যবধানে নিজের শীর্ষস্থান দখলে নিলেন সাকিব। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়ে যাওয়ায় তিনি নেমে যান তালিকার পাঁচে। তবে নিজের শীর্ষস্থান ফিরে পেতে সময়ই নিলেন না টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচেই ফের উঠে গেলেন চলতি বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকদের তালিকায় সবার ওপরে।

বাংলাদেশ দলকে জয়ে উপহার দিয়ে ছাড়িয়ে গেছেন এক নম্বরে থাকা অ্যারন ফিঞ্চকে। অস্ট্রেলিয়ার সবশেষ ম্যাচে ১৫৩ রানের ইনিংস খেলে ফিঞ্চের রান হয়েছিল ৩৪৩।

ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে সাকিব ৯৯ বলে ১৬ টি চার হাঁকিয়ে ১২৪ রানে অপরাজিত থাকেন। সাকিব চার ম্যাচে খেলে রান করেছেন ৩৮৪। ফলে ছাড়িয়ে যান ফিঞ্চকে। ৩৪৩ রান করতে ফিঞ্চ ৫ ইনিংস খেললেও, মাত্র ৪ ইনিংসেই তাকে টপকে যান সাকিব।

বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের তালিকা

১. সাকিব আল হাসান – ৪ ইনিংসে ৩৮৪ অপরাজিত

২. অ্যারন ফিঞ্চ – ৫ ইনিংসে ৩৪৩

৩. রোহিত শর্মা – ৩ ইনিংসে ৩১৯

৪. ডেভিড ওয়ার্নার – ৫ ইনিংসে ২৮১

৫. জো রুট – ৪ ইনিংসে ২৭৯