সেমিফাইনালের পথ আটকে গেল ইংল্যান্ডের

চলতি বিশ্বকাপের ৩২তম ম্যাচে আজ মাঠে নামে ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া। বাংলাদেশ সময় বিকাল ৩:৩০ মিনিটে শুরু হওয়া এই ম্যাচে টসে জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ইংলিশ অধিনায়ক ইয়ন মরগান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২৮৫ রান করে অস্ট্রেলিয়া। ২৮৬ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি ইংল্যান্ডের।

রানের খাতা না খুলেই বেহরেনডোর্ফের বলে বোল্ড হয়ে ফিরেন ভিন্স। এরপর ইংলিশ শিবিরে জোড়া আঘাত করেন স্টার্ক। ৮ রান করে স্টার্কের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়ে ফিরেন রুট। এরপর স্টার্কের বলে কামিন্সের হাতে ক্যাচ দিয়ে ৪ রান করে ফিরেন মরগান।

অন্যদিকে ব্যাট হাতে দলকে এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকেন বেয়ারস্টো ও স্টোকস। কিন্তু ব্যক্তিগত ২৭ রান করে বেহরেনডোর্ফের বলে কামিন্সের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন বেয়ারস্টো। বেয়ারস্টো বিদায় নিলেও স্টোকস ব্যাটিং ধীরতায় এগিয় চলেছে ইংল্যান্ড। এরপর সেঞ্চুরি তুলে নিলেন তিনি। ৭৫ বলে ৫ চার হাঁকিয়ে তিনি এই অর্ধশতক হাঁকান।

এরপর ফিরে যান জস বাটলার। ২৭ বলে ২৫ রান করে ফিরে যান তিনি। তার বিদায় চরম বিপদে পড়ে ইংল্যান্ড। তবে দলে জয়ে পথে নিয়ে যাচ্ছিলেন স্টোকস। কিন্তু ৮৯ রানে স্টার্কে বলে ফিরে গেলে উল্টো জয় দেখছে অস্ট্রেলিয়া। এরপর মাত্র ৯ বলে ৬ রান করে বিদায় নেন মঈন আলী।

মঈন আলীর বিদায়ে পর ফিরে যান ক্রিস ওকস। ৩৪ বলে ২৬ রান করে বেহরেনডোর্ফের বলে ফিরে যান তিনি। বেহরেনডোর্ফের পরে শিকার আর্চার। ৪ বলে ১ রান করেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ৪৪.৪ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২২১ রান করে ইংল্যান্ড। ৬৪ রানে জয় পায় অস্ট্রেলিয়া।

এ জয়ের ফলে প্রথম দল হিসেবে সেমি নিশ্চিত করলো অস্ট্রেলিয়া। কারণ তাদের আরো দুইটি ম্যাচ রয়েছে সে দুটি ম্যাচ হারলোও সেমিতে উঠাতে কোন বাধা থাকবেনা। ৭ ম্যাচে ৬টিতে জয় ও ১টি হারে পয়েন্ট তালিকায় ১২ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে অজিরা। যদিও সমীকরণের একটু হিসেবে নিকেশ রয়েছে।

অন্যদিকে, সেমিতে ওঠার লড়ায়ে আরো এক ধাপ পিছিয়ে গেল ইংল্যান্ড। কারণে তাদের সামনে রয়েছে দুটি ম্যাচ। আর সেই দুটি ম্যাচ জিতলে সেমি নিশ্চিত হবে। তবে একটি ম্যাচ হারলে একটি জিতলে অন্য দলের হার জিতের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে।

এর আগে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে সর্বোচ্চ ১০০ রানের ইনিংস খেলেন অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। এছাড়াও ওয়ার্নার ৫৩, স্মিথ ৩৮, খাজা ২৩, ম্যাক্সওয়েল ১২ রান করেন। অন্যদিকে ৩৮ রানে অপরাজিত ছিলেন অ্যালেক্স ক্যারি। ইংল্যান্ডের হয়ে ওকস ২টি, আর্চার, উড, স্টোকস ও মঈন ১টি করে উইকেট শিকার করেন।