গাঁজা ছিনতাই করে ধরা খেল ঢাবি শিক্ষার্থী আকরাম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৭-১৮ সেশনের লোকপ্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী আকরামুল কবির আকরামের বিরুদ্ধে ছিনতাইয়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঢাবি ক্যাম্পাসে ঘুরতে আসা কলেজপড়ুয়া কয়েকজন শিক্ষার্থী এই অভিযোগ জানান। শুধু তাই নয়, আকরামের বিরুদ্ধে অভিযোগ, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ভবঘুরে মাদক বিক্রেতাদের কাছ থেকে গাঁজা ছিনিয়ে নিয়ে তাদের মারধর করেছেন তিনি। এ ছাড়া সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আসা লোকজনকে মারধর করত বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গতকাল রবিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে সার্জেন্ট জহুরুল হক হল শাখা ছাত্রলীগের এই কর্মী কয়েকজন কিশোর ও বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার কর্মচারীদের সঙ্গে কলেজপড়ুয়া পাঁচ শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে মোবাইল ও টাকা ছিনতাই করে।

ছিনতাইয়ের শিকার বি এফ শাহীন কলেজের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী সিয়াম বিন হাসান জানান, শহিদ দিবসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘুরতে আসলে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গেটের সামনে থেকে আকরাম ও তার কয়েকজন সহযোগী আমাদের উদ্যানের মুক্তমঞ্চে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর আমাদের মাদকসহ পুলিশের হাতে ধরিয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে আমাদের কাছ থেকে চারটি মোবাইল ও আমাদের কাছে থাকা সব টাকা নিয়ে যায়। এরপর আমরা আকুতি জানালে তিনটি মোবাইল ফেরত দিলেও একটি আইফোন ও টাকা রেখে দেয়।

অভিযোগের বিষয়ে আকরামের তিন সহযোগী ইয়ামিন সুলতান, হাসিবুল বাসার হাসিব ও সোহাইন হোসাইন তানভীর অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করলেও আকরামুল কবির আকরাম এ বিষয়টি অস্বীকার করে।

আকরামের আরেক সহযোগী পলাশীর একটি ফাস্ট ফুড দোকানের কর্মচারী আল আমিন বলেন, আকরাম এর আগেও বিভিন্ন সময় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ভেতরে গাঁজা বিক্রেতাদের মারধর করে এবং পুলিশের কাছে ধরিয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে তাদের কাছ থেকে গাঁজা ছিনিয়ে নিত। এ ছাড়া সে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঘুরতে আসা লোকজনকে মারধর করে টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যেত।

এদিকে ঢাবির প্রক্টরিয়াল টিমের সহযোগিতায় তাকে শাহবাগ থানা পুলিশ আটক করে নিয়ে যায়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন অর রশিদ সময় সংবাদকে বলেন, তাকে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ভিত্তিতে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সূত্রঃ সময় নিউজ