ভারতের স্বাধীনতার ইতিহাসে নিম্নবর্গের কীর্তি তুলে ধরতে চান মোদি

ভারতের স্বাধীনতা-সংগ্রামের ইতিহাস নতুন করে লেখাতে চান সে দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেই আহ্বান জানিয়ে গতকাল শুক্রবার স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তি উৎসবের সূচনা করেন তিনি।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, স্বাধীনতার ‘কংগ্রেসময়’ ইতিহাস বদলে ফেলতে চান মোদি। নেহরু-গান্ধী পরিবারের ওপর থেকে অন্তত কিছুটা আলো সরিয়ে তুলে ধরতে চান ‘ইতিহাসে উপেক্ষিত নিম্নবর্গের মানুষের অবদান’।

আর তার সঙ্গে কৌশলে মেশাতে চান নিজের সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পকে। এর এই প্রচেষ্টাকে ভারতের স্বাধীনতা-সংগ্রামে সংঘ পরিবারের তেমন ভূমিকা না-থাকার অভিযোগ মোছার চেষ্টা হিসেবে দেখছেন অনেকেই। ভারতের স্বাধীনতার ইতিহাসে নিম্নবর্গের কীর্তি তুলে ধরতে চান মোদি।

নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, (গান্ধীর) ডান্ডি-যাত্রার দিনেই এই মহোৎসবের সূচনা করা এলা। … স্বাধীনতার জন্য দেশের বিভিন্ন প্রান্তে, প্রত্যন্ত কোণায় যত আন্দোলন হয়েছে, তা দেশের সামনে সেভাবে আসেনি। কিন্তু আসা উচিত ছিল।

এ প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে কুকা, ভিল, মুন্ডা, চম্পারণ, চুয়ার, বিরসা মুন্ডার সংঘর্ষের ব্যাপক প্রশংসা করে মোদি বলেন, তামিলনাড়ু থেকে মিজোরাম, গুজরাত থেকে উড়িষ্যা, বিভিন্ন প্রান্তে নানা দলিত, আদিবাসী নেতা ও গোষ্ঠীর আন্দোলনের কথা।

এর আগে ভারতের সংসদে দাঁড়িয়েও মোদি বলেছেন, স্বাধীনতা সংগ্রামের যাবতীয় কৃতিত্ব দাবি করে একটিমাত্র দল, একটি পরিবার। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, সেই ‘একাধিপত্য’ নতুনভাবে লেখা ইতিহাসে রাখতে চান না তিনি।

নরেন্দ্র মোদির দাবি, স্বাধীনতা সংগ্রামের মূল ভরকেন্দ্র আত্মনির্ভরতা। যা তার দলেরও লক্ষ্য। রাজনৈতিক শিবিরের মতে, এই উৎসবের মাধ্যমে তিনি সরকারের সঙ্গে প্রান্তিক, দলিত, পিছিয়ে থাকা জনগোষ্ঠীকে যুক্ত করতে চান।

সূত্র: আনন্দবাজার