আরব দেশগুলো গাজা যুদ্ধের শেষ দিন পর্যন্ত নীরব ছিল: ইরানের প্রেসিডেন্ট

ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেছেন, ফিলিস্তিনি জনগণের মধ্যকার ঐক্য ও সংহতি এবং প্রতিরোধ আন্দোলনে তাদের দৃঢ় মনোবলের কারণে তারা ইহুদিবাদী ইসরাইলের বিরুদ্ধে বিশাল বিজয় অর্জন করেছে।

গতকাল শনিবার (২২ মে) তেহরানে এক বক্তৃতায় ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেন, ইসরাইলের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক সংঘর্ষে ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা জনগোষ্ঠী এমনকি ১৯৪৮ সালে দখলীকৃত ভূখণ্ডে (ইসরাইলে) বসবাসরত ফিলিস্তিনিদের মধ্যে আমরা অভূতপূর্ব এক ঐক্য ও সংহতি দেখতে পেয়েছি। আমরা এ বিজয়ে তাদেরকে অভিনন্দন জানাই।

প্রেসিডেন্ট রুহানি বলেন, সারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে লাখ লাখ মানুষও সাম্প্রতিক সংঘর্ষের সময় ফিলিস্তিনি জনগণের প্রতি সমর্থন ও সংহতি ঘোষণা করেছে। কিন্তু দুঃখজনকভাবে কিছু পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠী শ্রোতের বিপরীতে গিয়ে দখলদার ইহুদিবাদী ইসরাইলের পক্ষ নিয়েছে।

ইরানের প্রেসিডেন্ট বলেন, বেশিরভাগ মুসলিম দেশ এই সংঘর্ষে ইতিবাচক ভূমিকা ও পক্ষ নিয়েছে। কিন্তু আরব বিশ্বের জনগণ কিছু সুনির্দিষ্ট আরব দেশের পক্ষ থেকে আরো সক্রিয় ভূমিকা আশা করেছিল। কিন্তু এসব দেশ গাজাবাসীর ওপর ইসরাইলের ভয়াবহ পাশবিক হামলার শেষ দিন পর্যন্ত পরিপূর্ণ নীরবতা অবলম্বন করেছে।

হাসান রুহানি বলেন, ফিলিস্তিনি জনগণ প্রতিরোধ আন্দোলনের মাধ্যমে বিজয় হয়েছে। তারা এমন এক শত্রুর বিরুদ্ধে বিজয়ী হয়েছে যার কাছে রয়েছে সর্বাধুনিক অস্ত্র এবং যার প্রতি রয়েছে বিশ্বের বড় শক্তিগুলোর প্রকাশ্য সমর্থন। ফিলিস্তিনিদের এবারের বিজয়ে ইসরাইলের দুর্বল দিকগুলো স্পষ্ট হয়ে গেছে এবং এর ফলে ভবিষ্যতের যেকোনো সংঘাতে ইহুদিবাদীরা আরো বড় পরাজয়ের শিকার হবে।

সূত্রঃ পার্সটুডে