পদ্মার চরে সুরমার কোলজুড়ে জন্ম নিল ‘পদ্মা’

দূরপাল্লার গণপরিবহন বন্ধ, পদ্মা পাড়ি দেওয়ার নৌযানও চলে না। কোনো রকমে একটি ট্রলারে করে নদী পার হয়ে শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পদ্মা নদীর চরে নামেন তারা। সেখানে পাঁচ কিলোমিটার হেঁটে মহাসড়কে যাওয়ার পথে প্রসব বেদনা ওঠে সুরমার। তখন চরের একটি বাড়িতে নেওয়া হয় তাকে। বিকেল ৫টার দিকে ওই গ্রামের নারীদের সহায়তায় একটি কন্যাসন্তান জন্ম দেন সুরমা।

গতকাল রোববার (৯ মে) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে তাদের সেখানে ভর্তি করা হয়। সন্তান প্রসবের পর ওই নারীর শারীরিক অবস্থা কিছুটা নাজুক হলে চর থেকে রাজ্জাক মাঝি নামের এক ব্যক্তি ফোন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফুজ্জামান ভূঁইয়া ও উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসানকে। খবর পেয়ে তারা স্বাস্থ্যকর্মীদের পাঠিয়ে নৌ-অ্যাম্বুলেন্সের মাধ্যমে ওই প্রসূতি ও নবজাতককে উদ্ধার করে জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান তারা।

হাসপাতালে নেওয়ার পর ওই দম্পত্তিদের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলেন শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক পারভেজ হাসান তাদের অভিনন্দন জানিয়ে চিকিৎসা ও আর্থিক সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দেন। আর পদ্মা নদীর চরে সন্তান প্রসব হওয়ায় তার নাম রাখেন ‘পদ্মা’। সানন্দে তা মেনে নেন নাহিদ ও সুরমা দম্পত্তি।

মো. নাহিদ মিয়া বলেন, এর আগে চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন আগামী মাসে তাদের সন্তান জন্ম নেবে। এ কারণে স্ত্রীকে তার বাবার বাড়ি রাখার উদ্দেশে বরগুনা রওনা হয়েছিলেন তারা। কিন্তু তারা বুঝতে পারেননি পদ্মা নদীতে কোনো নৌযান চলে না। মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া এসে আটকা পড়েছিলেন। পরে নদীর তীর দিয়ে দুই কিলোমিটার হাঁটার পর দুপুরের দিকে ট্রলারে করে পদ্মা নদীর একটি চরে নামেন। সেখান থেকে হেঁটে মহাসড়কের দিকে রওনা হন। পাঁচ কিলোমিটার হাঁটার পর তার স্ত্রীর প্রসব বেদনা ওঠে।

জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান বলেন, এক নারী চরের মধ্যে সন্তান প্রসব করেছেন এমন খবর পেয়ে নৌ-অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে তাকে উদ্ধার করা হয়। তাদের চিকিৎসা চলছে। এখন তারা দুজনই সুস্থ আছে।

জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আশ্রাফুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, আমরা বাচ্চাটির প্রাথমিক চিকিৎসাসহ যাবতীয় খরচ বহন করব। এমনকি বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্বও আমাদের। এ পদ্মার চরে জন্ম নেওয়া শিশুটির ভবিষ্যতে পড়াশোনার ব্যাপারে তিনি ব্যক্তিগতভাবে দায়িত্ব নেবেন এমন ঘোষণাও দেন ইউএনও।