বাড়ানো হলো ওয়াসার পানির দাম

করোনা মহামারির মধ্যেই আবাসিক ও বাণিজ্যিক পর্যায়ে প্রতি ইউনিট (১ হাজার লিটার) পানির দাম ৫ শতাংশ হারে বাড়িয়েছে ঢাকা ওয়াসা; যা আগামী ১ জুলাই থেকে কার্যকর হবে।

সোমবার (২৪ মে) ওয়াসার বোর্ড সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় যুক্তরাষ্ট্র থেকে অনলাইনে যুক্ত হন সংস্থাটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাকসিম এ খান।

ওয়াসা সূত্র জানিয়েছে, দাম বাড়ানোর পর আবাসিক গ্রাহকদের প্রতি এক হাজার লিটার পানির দাম দাঁড়াবে ১৫ টাকা ১৮ পয়সা। বর্তমানে এক হাজার লিটার পানি ১৪ টাকা ৪৬ পয়সা করে দিতে হচ্ছে। অন্যদিকে নতুন দাম কার্যকর হলে বাণিজ্যিক সংযোগের ক্ষেত্রে প্রতি এক হাজার লিটার পানির দাম দিতে হবে ৪২ টাকা। যা আগে ছিল ৪০ টাকা।

গত মার্চে পানির দাম বাড়ানোর এ প্রস্তাব দিয়েছিলেন ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাকসিম এ খান। কিন্তু ওই বোর্ড সভায় করোনাকালীন পানির দাম বাড়ানো নিয়ে সমালোচনার মুখ পড়লে সে সময় এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসে ঢাকা ওয়াসা।

ওয়াসা বলছে, ঢাকা ওয়াসার এক হাজার লিটার পানির উৎপাদন খরচ ২৫ থেকে ২৮ টাকা। সে কারণে পানির মূল্যবৃদ্ধি করা প্রয়োজন। এ ছাড়াও মূল্যস্ফীতি সমন্বয় করতেও মূল্য বৃদ্ধি করা দরকার। ওয়াসা আইন ১৯৯৬ এর ২২(২) ধারা অনুযায়ী ওয়াসা বোর্ড অনধিক ৫ শতাংশ হারে পানি ও পয়ঃঅভিকর সমন্বয় করতে পারে।

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর গত ১৩ বছরে ১৩ বার পানির দাম বাড়ানো হয়। এবারের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত কার্যকর হলে এই সময়ে মোট ১৪ বার পানির দাম বাড়বে।

এ বিষয়ে কথা বলতে ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খানের সঙ্গে মোবাইলে বারবার যোগাযোগ করা হলে মিটিংয়ে আছেন বলে ফোন কেটে দেন। পরে খুদে বার্তা পাঠালেও তিনি কোনও উত্তর দেননি।

জানতে চাইলে ওয়াসার চেয়ারম্যান প্রকৌশলী গোলাম মোস্তফা বলেন, ‘দাম বাড়ানো নয়, আমরা একে দাম সমন্বয় বলি। প্রতিবছর পানি উৎপাদন করতে গিয়ে আমাদের খরচ বেড়ে যায়। আইন অনুযায়ী সেই খরচ সমন্বয়ের সুযোগ রয়েছে।’