বাসাভাড়া দিতে না পেরে ঢাকা ছাড়ছে কর্মহীন নিন্ম আয়ের মানুষ

রাজধানীসহ সারাদেশে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে কঠোর লকডাউন দিয়েছে সরকার। এতে বড় সমস্যার সমুক্ষীন হচ্ছে নিম্ন আয়ের মানুষ। এমনিতে রাজধানীতে কাজের সংকট আর এর মধ্যে আসলো সরকারের বিধিনিষেধ আর এতে বাসাভাড়া দিতে না পেরে ঢাকা ছাড়ছে কর্মহীন নিন্ম আয়ের মানুষ।

পণ্যের মতো শ্রম কেনাবেচা হয় রাজধানীর নয়াবাজার, মিরপুর ১ ও ১০ নম্বর ওভারব্রিজের নিচে, ১৪ নম্বরের রাস্তার পাশে, মহাখালী ফ্লাই ওভারের নিচে, রেললাইনের ওপর, নাখালপাড়া রেলগেটে বড় মসজিদের সামনে, রেললাইনের পাশে ও সাতরাস্তার মোড়ে। সকাল ৭টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত শ্রম বিক্রি করেন ৫০০ থেকে ৬০০ টাকার বিনিময়ে।

প্রতিদিন ভোরে নানা বয়সী পুরুষ ও নারীরা আসেন এখানে কাজের খোঁজে। কারো হাতে কোদাল, কারো হাতে রং করার বালতি, কারো হাতে রাজমিস্ত্রীর যন্ত্রপাতি, আবার কেউ আসেন খালি হাতেই। গত তিন দিন শ্রমজীবী এসব মানুষের সঙ্গে কথা এই প্রতিবেদকের। তারা জানান, কাজ না থাকায় এখন আর হাট আগের মতো জমে না।

হযরত আলী বলেন, গ্রাম থেকে শহরে এসেছিলাম রুটি রুজির আশায়;কিন্তু এখানেও কাজ মিলছে না। একদিন কাজ পেলে তিন দিন বসে থাকতে হয়। শহরে থাইকা কি অইবো।

বেসরকারি সংগঠন পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টার (পিপিআরসি) ও ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (বিআইজিডি) তাদের সা¤প্রতিক এক গবেষণা প্রতিবেদনে বলেছে, ঢাকা এবং অন্যান্য শহরের ৫৪ শতাংশের বেশি গৃহকর্মী বেকার হয়ে পড়েছেন। এসব কাজ হারানো নারীদের মধ্যে মাত্র ৫ শতাংশ বিকল্প পেশায় নিযুক্ত হতে পেরেছেন।

ভাড়াটিয়া পরিষদের সভাপতি বাহরানে সুলতান বাহার বলেন, এমন হবে সেটা শুরুতেই আন্দাজ করা যাচ্ছিল। এখন পর্যন্ত আমাদের হিসেবে ৫০ হাজারের বেশি মানুষ কেবল ভাড়া দিতে না পেরে ঢাকা ছাড়তে বাধ্য হয়েছে। ভাড়া দিতে না পেরে অনেক বাসায় জিনিসপত্র রেখেই চলে যাচ্ছে। কেউ কেউ যাওয়ার সময় আসবাব বিক্রি করে ভাড়া পরিশোধ করে গেছে।

এদিকে ঢাকার প্রায় বাড়িতে ‘টু লেট’ ঝুলে থাকতে দেখা গেছে। বেশিরভাগ বাড়িওয়ালাই লোকসানে পড়েছেন। মোহাম্মদপুরে মোহাম্মাদীয়া হাউজিং লিমিটেডের সাত নম্বর রোডের বাড়িওয়ালা আশিকুর রহমান জানান, তার চারতলা বাড়ির দুই পরিবার জানুয়ারি মাসে বাসা ছেড়ে দিয়েছেন। পাচঁ মাস হতে চললো ভাড়াটিয়ার দেখা নেই।