শিমুলিয়া-বাংলাবাজার লঞ্চ বন্ধ থাকায় যাত্রীর চাপ ফেরিতে

প্রাণঘাতী করোনা রোধে মুন্সিগঞ্জে ৯ দিনের লকডাউনকে কেন্দ্র করে লঞ্চসহ যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধ থাকায় যাত্রীদের ভিড় বেড়ে চলেছে ফেরিতে। ফেরিগুলোয় সাধারণ যাত্রী ও যানবাহন পারাপারের বিধিনিষেধ থাকলেও তা মানছেন না কেউ। সকাল থেকেই ঘাটে আসা যাত্রী ও যানবাহন পারাপার হচ্ছে ফেরিতে।

আজ মঙ্গলবার (২২ জুন) সকাল থেকে জেলার প্রবেশ পথগুলোতে এসব চেকপোস্ট বসানো হয়। চেকপোস্ট দিয়ে জেলার ভেতরে বহিরাগতদের প্রবেশ রোধ ও জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কাউকে বাইরে যেতে দেয়া হচ্ছে না।

বাংলাবাজার ফেরিঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) ভজন সাহা বলেন, ঘাটে লঞ্চ বন্ধ থাকায় ফেরিতে যাত্রী ও যানবাহনের চাপ ক্রমেই বাড়ছে। আপাতত আমরা যানবাহন ফেরিতে তুলতে পারলেও যাত্রীর চাপ বেশি থাকলে সেটা সম্ভব হচ্ছে না। উভয় ঘাট থেকে ১৫টি ফেরি চলাচল করছে। লঞ্চ বন্ধ থাকায় যাত্রীরা এখন ফেরিতে পারাপার হচ্ছে। ফেরি ঘাটে আসার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রী উঠে ভরে থাকে। ঘাটে আমাদের লোকজন কম থাকায় সাধারণ যাত্রীদের আটকে রাখা সম্ভব হচ্ছে না।

এ বিষয়ে বিআইডাব্লিউটিসি শিমুলিয়াঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) প্রফুল্ল চৌহান জানান, শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে বর্তমানে ১৪টি ফেরি সচল রয়েছে। এসব ফেরি দিয়ে দিয়ে শুধুমাত্র কাঁচামাল, পণ্যবাহী গাড়ি ও জরুরি রোগীবাহী গাড়ি পার করা হচ্ছে। সাধারণ যাত্রী পারাপার বন্ধ রয়েছে। ঘাটে গাড়ির চাপ নেই।

বিআইডাব্লিটিএ শিমুলিয়াঘাটের বন্দর কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন জানান, ভোর থেকে লঞ্চ চলাচল পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে। কোন ধরনের যাত্রীবাহী লঞ্চ ও স্পীডবোট চলাচল করছে না।