ঈদে রোহিঙ্গাদের জন্য কোরবানি হবে ২৩৫ টি গরু

করোনাভাইরাসের মৃত্যু থাবা থেকে রক্ষা পাচ্ছে না কেহই। কিছু মানুষের স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চলায় দিন দিন আরও ভয়ংকর হচ্ছে করোনা। এতে বাড়ছে সংক্রমন ও মৃত্যু ঝুকি। আগামী ২১ জুলাই দেশে মুসলমানদের দ্বিতীয় বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে।

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে নোয়াখালীর ভাসানচরে স্থানান্তর করা বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের জন্য এবার ২৩৫টি গরু কোরবানির ব্যবস্থা করেছে সরকার। এই গরুগুলো বিভিন্ন এনজিও সংস্থার মাধ্যমে সংগ্রহ করে তা ভাসানচরের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের কাছে পৌঁছে দিয়েছে।

আজ শনিবার (১৭ জুলাই) দুপুরে বিষয়টি নোয়াখালী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, সাড়ে চার হাজারের বেশি রোহিঙ্গা পরিবারের কোরবানির জন্য ২২০টি গরুর চাহিদা থাকলেও তিনটি এনজিও সংস্থা ২৩৫টি গরু সরবরাহ করেছে ভাসানচরের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের কাছে পৌঁছে দিয়েছে।

জেলা প্রশাসক জানান্য, সুষ্ঠুভাবে কোরবানির পশু জবাই ও ভাসানচরের রোহিঙ্গাদের সবার মাঝে ভাগ করে দিতে মংচিংনু মারমা নামে জেলা প্রশাসনের একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটও সেখানে পাঠানো হয়েছে। আশা করি কোনো সমস্যা হবে না।

শরণার্থীবিষয়ক কমিশন অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ডাটাবেস করেছি। প্রতিটি ক্লাস্টারে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। পশু কোরবানির পর প্রতিটি ঘরে ঘরে মাংস পৌঁছে দেয়ার কাজ করবে এ কমিটির সদস্যরা।

আবার ভাসানচরের ওয়্যার হাউসে ঈদুল আজহার দুটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে।