ফরাসি তরুণী বললেন, কোরআন শান্তির বার্তা বহন করে

কুরআন মজিদ অথবা কুরআ-ন মাজী-দ বা কোরআন ইসলাম ধর্মের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ, যা আল্লাহর বাণী বলে মুসলমানরা বিশ্বাস করে থাকেন। এটিকে আরবি শাস্ত্রীয় সাহিত্যের সর্বোৎকৃষ্ট রচনা বলে মনে করা হয়।

নতুন খবর হচ্ছে, শুক্রবার (৯ জুলাই) ফ্রান্সের প্যারিস গ্র্যান্ড মসজিদ পরিদর্শন করেছেন দেশটির আলোচিত তরুণী মিলা। এরপর পরিদর্শনকালে তাঁকে ফরাসি ভাষায় অনূদিত কোরআনের একটি কপি উপহার দিয়েছেন গ্র্যান্ড মসজিদের প্রধান ইমাম শামসুদ্দিন হাফিজ।

এর আগে মতপ্রকাশের অধিকারের দাবীতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ইসলাম ও পবিত্র গ্রন্থ কোরআনের নিন্দা করে মিলা। ফলে নানা রকম হুমকি ও হয়রানির মুখোমুখী হন ফ্রান্সের এই তরুণী। ইসলাম বিদ্বেষমূলক একটি ভিডিও পোস্ট করায় তাকে স্কুল পরিবর্তন করতে হয়েছিল। গত ৮ জুলাই মিলাকে হয়রানির দায়ে ১১ জনকে দোষী সাব্যস্ত করেছে দেশটির আদালত। এরপর প্যারিসের বৃহত্তম গ্র্যান্ড মসজিদের পরিদর্শনে আসেন তিনি।

মসজিদের ইমাম থেকে পবিত্র কোরআনের একটি কপি উপহার পেয়ে মিলা জানান, এটি শান্তির বার্তা বহন করে, যা আমাদের সবার জন্য খুবই প্রয়োজন। মসজিদের পরিদর্শনের এই ভ্রমণ সব জটিলতা দূর করতে নতুন একটি সুযোগ তৈরি করবে বলে জানান তিনি। কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে মিলাকে প্যারিসের শতবর্ষের মসজিদে ঘুরে ঘুরে দেখিয়েছেন সেখানকার ইমাম হাফিজ। মসজিদের মূল স্থান, মিনরা, পার্কসহ আশপাশের বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখেন তিনি।

দুই ঘণ্টা ব্যাপী মসজিদ পরিদর্শন শেষে ইমাম হাফিজ জানান, মসজিদের দরজা সবার জন্য উম্মুক্ত থাকবে। আমরা তাঁকে ইসলামের সঠিক চিত্র দেখাতে চাই। আমি বিশ্বাস করি যে মিলার কঠোর বাক্য হয়ত অনলাইন বুলিংয়ের সুনির্দিষ্ট কিছু কনটেন্টের ভিত্তিতে ছিল।

উল্লেখ্য, গত ২০২০ সালে ইসলামের বিরুদ্ধে তার বেশ কিছু ভিডিও প্রকাশের পর অচেনা এই স্কুল শিক্ষার্থী ফ্রান্সে তুমুল পরিচিতি পান। তার সমর্থকরার তাকে বাকস্বাধীনতার সাহসী যোদ্ধা হিসেবে মনে করে। তাছাড়া অন্যরা ইসলাম বিদ্বেষী ও উস্কানিদাতা হিসেবে তার তীব্র সমালোচনা করেন।

সূত্র: স্ট্র্যাটস টাইমস