একাদশে ফিরেই দুর্দান্ত ফিফটি ইমরুলের

বাংলাদেশের ক্রিকেটকে আজকের এই উচ্চ পর্যায়ে নিয়ে আসতে যে কয়জন ক্রিকেটার সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন তাঁর মধ্যে ইমরুল কায়েস অন্যতম। এই পর্যন্ত অনেক রেকর্ড নিজেদের করে নিয়েছেন এই তারকা ক্রিকেটার।

চট্টগ্রামে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ এ দলের বিপক্ষে প্রথম একদিনের ম্যাচে টস হেরে আগে ব্যাট করতে নামে তামিমের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ২৪৭ রান সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ এইচপি দল। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ৩ রান করে ওপেনার পারভেজ হোসেন ইমন প্যাভিলিয়নে ফেরেন।

তবে শুরুর ধাক্কা সামলে নেন তানজিদ হাসান তামিম ও মাহমুদুল হাসান জয়। এই দুইজন মিলে গড়ে তোলেন ১৩১ রানের পার্টনারশিপ। ৬২ বলে ৩৮ রান করে কামরুল ইসলাম রাব্বি বলে প্যাভিলিয়নে ফেরেন মাহমুদুল হাসান জয়।

তবে এইদিন সেঞ্চুরি মিস করেছেন তানজিদ হাসান তামিম। মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের বলে উড়িয়ে মারতে গিয়ে ৯৩ বলে ৮১ রানে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। উইকেটে বেশি সময় টিকতে পারেননি তৌহিদ হৃদয়। রান আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি।

পঞ্চম উইকেটে ৪৯ বলে ৫১ রানের জুটি গড়েন আকরব ও দীপু। শহিদুলের জায়গা দাঁড়িয়ে কাট করতে গিয়ে উইকেটরক্ষকের তালুবন্দী হয়ে সাজঘরে ফেরেন আকবর। অধিনায়কের ব্যাট থেকে আসে ২৪ বলে ২৮ রান।

ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে সীমানার কাছে ক্যাচ আউট হন শামীম হোসেন৷ এক ছক্কায় ১২ বলে ৮ রান করে মোসাদ্দেকের বলে সাজঘরে ফেরেন তিনি। অর্ধশতক হাঁকিয়ে রুবেলের শিকার হন দীপু। ৬৩ বলে ৫১ রান করেন তিনি। সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৪৭ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশে এইচপি ক্রিকেট দল।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালোই করেছিলেন ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত। টি-টোয়েন্টি স্টাইলে ব্যক্তিগত ২৭ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন জাতীয় দলের এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। আজকের ম্যাচের একাদশে সুযোগ পেয়ে ভালো খেলছেন টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস।

অধিনায়ক মমিনুল হককে সাথে নিয়ে বড় একটি পার্টনারশিপ করে তোলেন তিনি। দলীয় ৯৩ রানের মাথায় ২৯ রান করে আউট হন মমিনুল হক। মমিনুল হক আউট হলে ও অন্য প্রান্ত থেকে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন ইমরুল কায়েস। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ২৭.৩ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে ১৩৭ রান সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। মুশফিকুর রহিম ২২ এবং ইমরুল কায়েস ৫০ রান করে অপরাজিত রয়েছেন।