এবার ফেসবুকে পরীমণিকে তুলোধুনো

বর্তমান সময়ের সেরা আলোচিত জনপ্রিয় অভিনেত্রী পরীমনি। আলোচনা- সমালোচনা নিয়েই তার ক্যারিয়ার। বরাবরই তিনি আলোচনায় থাকেন। ফের খবরের শিরোনাম হলেন এই অভিনেত্রী।

নতুন খবর হচ্ছে, ডান হাতের তালুতে ‘…ক মি মোর’ লিখে এবং অঙ্কন করে আবারও সমালোচনার মুখে পড়েছেন চিত্রনায়িকা পরীমণি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তাকে তুলোধুনো করছেন নেটিজেনরা। প্রকাশ্যে হাতের তালুতে অঙ্কিত ‘মিডল ফিঙ্গার’ প্রদর্শন করে তিনি অশ্লীল আহ্বান জানিয়েছেন বলে ক্ষোভ প্রকাশ করছে সকল মহলে মানুষ।

একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালের ফেসবুক পেজে শেয়ার করা নিউজের নিচে কমেন্ট বক্সে Shakil Ashraf নামের এক নেটিজেন মন্তব্য করেন- ‘কথায় আছে, একবার নাক কাটলে যায় জংগলে, লজ্জায়।আর বার বার নাক কাটলে যায় দুয়ারে দুয়ারে। লজ্জাহীন হয়ে গেছে।তার আর এসবে কিছু যায় আসে না।’

Tania Akter নামের আরেক নেটিজেন লেখন- ‘আগে জানতাম বেশি সুন্দরীরা কম বুদ্ধিমান হয়। তাই ভেবে নিজেকে বুদ্ধিমান ভাবতাম। আমার ভাবনাই উলটে দিল পরিমণি। আবার আবার বোকা হয়ে গেলাম।’

Palash Mahmud নামের আরও একজন বলেন- ‘কয়লা ধুইলে ময়লা যায় না’ বা ‘স্বভাব যায় না মরলে, আর ইল্লত যায় না ধুলে’। ২০১৯-২০ অর্থ বছরে পরী ট্যাক্সফাইলে বলেছেন, তার বার্ষিক আয় সাড়ে ৯ লাখ টাকা। অথচ তিনি থাকেন ১০ কোটি টাকার বাসায়। কোটি টাকার একাধিক গাড়ি, বিলাসী জীবন, ইয়টে ভ্রমণ, ক্লাবের বিল বা এসব নিয়ে কথা বলা খুব জরুরী নয়। কিন্তু একজন মানুষের উপার্জন ও জীবনযাপন দিয়ে তার গতিবিধি মাপা যায়। পরীর গতিবিধি খারাপ-ভালো সেটা তার বিষয়। কিন্তু ঔদ্ধত্যের সীমা থাকা দরকার আছে। বিবেক বুদ্ধিতে স্বাভাবিক মানুষের পরিচয় দেওয়া দরকার। মানুষের সিম্প্যাথি-ভালোবাসার মূল্যায়ণ-সম্মান করা দরকার। আজ তিনি হাতে যা লিখেছেন তা হলো, ‘(?) মি মোর’। একটি শিশু বা কিশোর এটাকে ডায়ালগ হিসেবে ব্যবহার করতেই পারে। আপনি কাকে বা কাদের দিয়ে আপনাকে (?) মোর করাবেন সেটা আপনার বিষয়। কিন্তু পাবলিকলি বিবস্ত্র হয়ে সেটা করাতে পারেন না। হ্যাঁ, সেটা আপনি পারেন যদি মানুষ না হয়ে অন্য কোনো।”