এ দেশের মানুষ মনে করুক বা না করুক আমি দক্ষিণ আফ্রিকান: তাহির

টি-২০ বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকা স্কোয়াডে রয়েছে তরুণের ছড়াছড়ি। কিন্তু অভিজ্ঞ সিনিয়রদেরকে বিবেচনায় রাখেনি দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। ফাফ ডু প্লেসিস কিংবা ইমরান তাহির, দুজনেই অন ফর্মে থাকলেও ডাক পাননি স্কোয়াডে। এরই প্রেক্ষিতে ৪২ বছর বয়সী তাহির জানালেন তিনি ৫০ বছর বয়স পর্যন্ত ক্রিকেট খেলতে চান।

এদিকে ইমরান তাহিরের জন্ম ও বেড়ে ওঠা পাকিস্তানে। পাকিস্তান অনূর্ধ্ব ১৯ দলের পক্ষেও খেলেছেন তিনি। কিন্তু তারপরে আর পাকিস্তান জাতীয় দলে সুযোগ পাচ্ছিলেন না, তাই পাড়ি জমান দক্ষিণ আফ্রিকায়। ৩২ বছর বয়সে দক্ষিণ আফ্রিকা জাতীয় দলে অভিষেক হয় তাহিরের। ৩৭ বছর বয়সে আইসিসির ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি বোলিং র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষস্থানে ওঠেন তিনি।

গত ২০১১ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত টানা ৮ বছর দক্ষিণ আফ্রিকা জাতীয় দলে খেলেছেন। ২০১৯ বিশ্বকাপ শেষে ওয়ানডে ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেও টি-টোয়েন্টি খেলা চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন তাহির। কিন্তু বিশ্বকাপের পরে তাকে আর দলে নেওয়া হয়নি। ২০২০ সালে অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপে তাকে নেওয়ার কথা বলেছিলেন গ্রায়েম স্মিথ কিন্তু বিশ্বকাপটি স্থগিত হয়ে যাওয়ার সাথে সাথে স্মিথও ভুলে যান সেই কথা।

গত এক বছরে আর তাহিরের সাথে যোগাযোগ করেনি ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকা। একসময়ের সতীর্থ স্মিথ ও মার্ক বাউচারের সাথে তাহির যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তারা উত্তর দেননি। এতে ব্যথিত হয়েছেন তাহির।

দক্ষিণ আফ্রিকার মানুষের উদ্দেশে তাহির বলেছে, “আমি এখনো কঠোর পরিশ্রম করছি এবং দেশের হয়ে খেলার জন্য ত্যাগ স্বীকার করছি। আমি দক্ষিণ আফ্রিকার মানুষকে আমার কাহিনি শুনাতে চাই কারণ দলের পক্ষে আমি জানপ্রাণ দিয়ে খেলেছি। এ দেশের মানুষ আমাকে দক্ষিণ আফ্রিকান মনে করুক বা না করুক আমি দক্ষিণ আফ্রিকান। আমার স্ত্রী এবং পরিবারও দক্ষিণ আফ্রিকান। আমার সন্তানের জন্ম ও বেড়ে ওঠা দক্ষিণ আফ্রিকায়।”

তাহির জানিয়েছেন, তার বয়স ৪২ বছর হয়ে গেলেও এখনই অবসরের কোনো চিন্তা করছেন না। শরীর সায় দিলে ৫০ বছর বয়স পর্যন্ত খেলে যেতে চান এই লেগ স্পিনার।

তাহিরের ভাষায়, “আমি সবসময়ই দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্ন দেখেছি। এই অর্জন করে দক্ষিণ আফ্রিকাকে আমি ধন্যবাদ জানাতে চাই, কারণ তারা আমাকে সুযোগ দিয়েছে। তাই আমি এখনই অবসরের চিন্তা করছি না। আমার পক্ষে যদি সম্ভব হয়, তাহলে ৫০ বছর বয়স পর্যন্ত আমি ক্রিকেট খেলতে চাই।”

টুইটারে তাহির লিখেছেন, “দক্ষিণ আফ্রিকার প্রতিনিধিত্ব করা আমার প্রধান লক্ষ্য। এই দেশটিই আমার স্বপ্ন পুরণ করার সুযোগ দিয়েছে। আমি কখনোই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অবসরের ঘোষণা দিইনি এবং এখনো দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে টি-টোয়েন্টি খেলার জন্য প্রস্তুতি আছি। এই বছরের বিশ্বকাপ খেলতে না পেরে খারাপ লাগছে তবে আগামী বছরের বিশ্বকাপের দিকে দৃষ্টি রাখছি।”