দেড় বছর পর মসজিদে হারামে নারীদের কোরআন পাঠদান শুরু

আল-কোরআন এসেছে বিশ্ব মানবতাকে হিদায়াতের সঠিক পথের সন্ধান দেয়ার জন্য। আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, ‘রমজান মাস, যাতে কোরআন নাযিল করা হয়েছে মানুষের হিদায়াতস্বরূপ এবং হিদায়াতের সুস্পষ্ট নিদের্শনাবলী ও সত্য-মিথ্যার পার্থক্যকারীরূপে।’ (সূরা আল-বাকারা-১৮৫) হিদায়াতের এই কিতাব আল-কোরআন শিক্ষা করা প্রত্যেক মুসলমানের উপরে ফরজ করা হয়েছে।

নতুন খবর হচ্ছে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে মক্কা ও মদিনার পবিত্র দুই মসজিদে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে ফিরে আসছে। পুনরায় চালু হচ্ছে নিয়মিত কার্যক্রম পুনরায়। সেই ধারাবাহিকতায় দেড় বছর পর এবার পবিত্র মসজিদুল হারামের নারী মুসল্লিদের পবিত্র কোরআনের পাঠ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে ফের কোরআন হিফজের এ অধিবেশন শুরু হয়।

মসজিদুল হারামের পরিচালন পর্ষদের জ্ঞান ও সংস্কৃতি বিভাগের উপসহকারী ড.ফাদিয়া বিনতে মুস্তফা আল আশরাফ বলেন, ‌‘সংশ্লিষ্টি অভিজ্ঞ শিক্ষিকারা পবিত্র কোরআন ও হাদিসের পাঠদান করবেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাঁরা শিক্ষার্থীদের কোরআন হিফজ ও পাঠ বিশুদ্ধ করাবেন।’

কোরআন পাঠদান কার্যক্রমের প্রধান অধ্যাপক মারয়াম জুবায়ের বলেন, ‘প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১১টা পর্যন্ত নিবন্ধিত শিক্ষার্থীদের কোরআন হিফজের কার্যক্রম চলবে। এরপর ১১টা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত মুসল্লিদের মধ্যে কোরআন পাঠদান চলবে।’

স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছে মসজিদ কর্তৃপক্ষ। মসজিদে হারামে পবিত্র কোরআনের কপি মুসল্লিদের পাঠের জন্য আগের মতো সরবরাহ করা হয়। নামাজ আদায়ে মুসল্লিদের সামাজিক দূরত্ব কমিয়ে আনা হয়। তা ছাড়া মসজিদুল হারামের পরিচালনাধীন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা কার্যক্রমও শুরু হয়েছে। অবশ্য মসজিদের সব কার্যক্রমে স্বাস্থবিধি মেনে কেবল টিকা নেওয়া মুসল্লিরা অংশ নিতে পারবেন।

সূত্র : সৌদি গেজেট