দ্বিতীয় ম্যাচে শক্তিশালী নেপালকে রুখে দিল বাংলাদেশ

এবার নেপাল সফরে স্বাগতিকদের বিপক্ষে দ্বিতীয় প্রীতি ম্যাচে (ফিফা টায়ার-১) দুর্দান্ত খেলল বাংলাদেশের মেয়েরা। রক্ষণ সামলে বারবার আক্রমণেও উঠল সাবিনা খাতুন, কৃষ্ণা রানী সরকাররা। তবে কাঙ্ক্ষিত গোল না আসায় জয় পাওয়া হলো না। আজ রবিবার কাঠমান্ডুর দশরথ রঙ্গশালা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়। বৃহস্পতিবার প্রথম প্রীতি ম্যাচে ২-১ গোলে হেরেছিল গোলাম রব্বানী ছোটনের দল।

এশিয়ান কাপ বাছাইয়ের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে প্রীতি ম্যাচ দুটি খেলল বাংলাদেশ। যে আসরে খেলতে নেপাল থেকেই উজবেকিস্তানে উড়ে যাবে বাংলাদেশের মেয়েরা। এশিয়ান বাছাইয়ে বাংলাদেশ রয়েছে ‘জি’ গ্রুপে। যেখানে তাদের সঙ্গী জর্ডান ও ইরান। ১৯ সেপ্টেম্বর জর্ডান ও ২২ সেপ্টেম্বর ইরানের বিপক্ষে ম্যাচ সাবিনা-কৃষ্ণাদের।

এদিকে একটা জয় দিয়ে নেপাল সফর শেষ করতে পারলে এশিয়ান কাপের প্রস্তুতিটা আরো ভালো হতো বাংলাদেশের মেয়েদের। সেই আক্ষেপটা তাই থাকছেই। তবে বাস্তবতা হচ্ছে, বয়সভিত্তিক ফুটবলে সাফ অঞ্চলে বাংলাদেশের মেয়েরা দাপট দেখালেও সিনিয়র পর্যায়ে কখনো নেপালেকে হারাতে পারেনি।

সেই ২০১০ সাল থেকে দলটির সঙ্গে লড়ছে বাংলাদেশে। এখন পর্যন্ত ৮ দেখায় এটি দ্বিতীয় ড্র তাদের। প্রথম ড্রটি ছিল ২০১৮ সালে ইয়াঙ্গুনে অলিম্পিক বাছাই ম্যাচে। এ দিনের ম্যাচ স্ট্যাটিসটিকসে নেপালই অবশ্য খানিকটা এগিয়ে। তবে বাংলাদেশ কোনো ক্ষেত্রেই পিছিয়ে নেই খুব একটা। স্বাগতিকেরা ৫৫ শতাংশ বলের দখল রাখতে পেরেছে। গোলমুখে শট খুব বেশি নিতে পারেনি দলটি।

এদিকে মাসুরা পারভীন, শিউলী আজিম, নিলুফা ইয়াসমিন নীলা, শামসুন্নাহারকে নিয়ে গড়া ডিফেন্স ছিল দুর্দান্ত। গোলরক্ষক রুপনা চাকমাও এদিন ভুল করেননি কোনো। পাল্টা আক্রমণ থেকে কয়েকটি ভালো সম্ভাবনাও তৈরি করেছিল বাংলাদেশ। যদিও কৃষ্ণা, স্বপ্না, সাবিনা, রিতুদের নিয়ে গড়া ফরোয়ার্ড লাইনের কেউ ফায়দা তুলতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত তাই ড্র হয়েছে ম্যাচ।