যা আমার হাতে নেই, তা নিয়ে মাথা ঘামাই না: সোহান

বর্তমান বাংলাদেশের ক্রিকেটের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র সোহান। এই পর্যন্ত অনেক রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন এই তারকা ক্রিকেটার।

নতুন খবর হচ্ছে, উইকেটের পেছনে তার সরব উপস্থিতি, উদ্দীপ্ত শরীরী ভাষা, কিপিং গ্লাভস হাতে দক্ষতা, মিডল অর্ডারে কার্যকরী ব্যাটিং- সব মিলিয়ে খুব অল্পদিনেই জাতীয় দলে ও সমর্থকদের মনে একটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গা তৈরি করে নিয়েছেন নুরুল হাসান সোহান। জাতীয় দলে এটি বলা যায় তাঁর দ্বিতীয় অধ্যায়। তবে এই অধ্যায়ে যেন নতুন করে নিজের জাত চেনাচ্ছেন এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান।

আজ (বুধবার) মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন সোহান। কথোপকথনে উঠে এসেছে তাঁর বিশ্বকাপ ভাবনা, কিপিং-দর্শন, ব্যক্তিগত জীবনদর্শনসহ আরো নানান প্রসঙ্গ।

২০১৮ সালের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের পর জাতীয় দল ও তাঁর মাঝে ছিল প্রায় সাড়ে তিন বছরের লম্বা দূরত্ব। দ্বিতীয় দফা দলে ফিরেই টানা তিন সিরিজ করেছেন কিপিং। মুশফিকুর রহিম টি-টোয়েন্টিতে কিপিং ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা করার মাধ্যমে এটিও প্রায় নিশ্চিত হয়ে গেছে যে, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও উইকেটের পেছনে সোহানই থাকছেন। এই লম্বা সময়ের নিশ্চয়তাটা কতটুকু উপভোগ করছেন সোহান? জবাবে বলেছেন, এসব নিয়ে নাকি মাথাই ঘামান না এই ২৭ বছর বয়সী।

“দুই তিন বছর যখন জাতীয় দলের বাইরে ছিলাম তখন নিজের মানসিকতা পরিবর্তন করেছি। এখন খুব বেশি কিছু নিয়ে আমি মাথা ঘামাই না। মনে হয়, যখনই দলের হয়ে খেলবো তখন দলের জয়ে ভূমিকা রাখার জন্য যে দায়িত্ব থাকে সেটা পালন করাই আমার প্রথম দায়িত্ব। বড় বিষয় হলো প্রক্রিয়াটা ঠিক রাখা ও পরিশ্রম করা। এর বাইরে যেগুলো আমার আয়ত্বে নেই- সেগুলো নিয়ে খুব একটা ভাবিনা“- সোহান

উইকেটের পেছনে সাবলীল সোহান

টি-টোয়েন্টি সিরিজে কিপিং গ্লাভস নিয়ে একটা প্রতিদ্বন্দ্বীতার আভাস উঠেছিল অগ্রজ মুশফিকের সাথে। তবে মুশফিকের ঘোষণায় তার অবসান ঘটেছে। সিরিজ চলাকালীন মুশফিকের সাথে অনুশীলন করতেও দেখা গিয়েছে সোহানকে। জানিয়েছেন, দলের বাইরে থাকাকালীনও নাকি চমৎকার সম্পর্ক ছিল তাঁর মুশফিকের সাথে।