হাফ সেঞ্চুরি মিস করলেও কোটি ভক্তদের মন জয় করে নিলেন আফিফ

শেষ পর্যন্ত হার দিয়েই সিরিজ শেষ করলো টাইগাররা। সিরিজের পঞ্চম টি-২০ তে স্বাগতিক বাংলাদেশকে ২৭ রানে হারিয়েছে নিউজিল্যান্ড। কিন্তু শেষ ম্যাচে হেরে গেলেও ৩-২ ব্যবধানে সিরিজ জয় নিশ্চিত করেছে টাইগাররা।

সফরকারী নিউজিল্যান্ডের দেওয়া ১৬২ রান তাড়া করতে নেমে প্রত্যাশিত সূচনা পায়নি বাংলাদেশ। টপ অর্ডার ধসে বরং চাপে পড়ে যায় স্বাগতিকরা। সেই চাপ সামলে দলকে জয়ের পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন আফিফ হোসেন ও দলপতি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেটা আর হয়ে ওঠেনি। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৩৪ রান করে বাংলাদেশ। ৪৯ রানে অপরাজিত থাকেন আফিফ হোসাইন। কিউইদের পক্ষে ২ টি করে উইকেট নেন আজাজ পাটেল ও কুগ্লেইন।

মিরপুরে শেষ টি-টোয়েন্টির উইকেটটি ছিল পুরোপুরি ব্যাটিং সহায়ক। কিউইদের মতো অবশ্য বিধ্বংসী শুরু পায়নি স্বাগতিকরা। মোহাম্মদ নাঈম হাত খুলে খেলেছেন ঠিকই। কিন্তু লিটন ১২ বলে ১০ রানের বেশি করতে পারেননি। এজাজ প্যাটেলের স্পিনে দারুণ এক ক্যাচে ফিরে গেছেন।

পরীক্ষা-নিরীক্ষার শেষ ম্যাচে সৌম্যকে সুযোগ দেওয়া হলেও আস্থার প্রতিদান দিতে পারেননি। ম্যাকনকির ঘূর্ণিতে দারুণ এক ক্যাচে ফিরেছেন মাত্র ৪ রানে। তার পরেও বাংলাদেশের স্বস্তির জায়গা ছিল নাঈমের আগ্রাসী ব্যাটিং। অষ্টম ওভারে এই আগ্রাসনই কাল হয়ে দাঁড়ায়। বেন সিয়ার্সের গতিময় এক বলে গ্লাভসবন্দি হয়ে নাঈম ফেরেন ২১ বলে ২৩ রান করে। এটি আবার সিয়ার্সের প্রথম আন্তর্জাতিক উইকেট।

আগের ম্যাচে শূন্য রানে ফেরা মুশফিকও ফিরে যান নাঈমের পর পর। রবীন্দ্রকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে তিনি ক্যাচ আউটে ফিরেছেন মাত্র ৩ রানে।

শেষের দিকে আফিফ-মাহমুদউল্লাহ আশা জাগালেও ২১ বলে ২৩ রান করে মাহমুদউল্লাহ আউট হওয়ার পরে সে আশা নিভে যায়। এরপর দ্রুত আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন সোহান, শামীম, তাসকিনরা। তবে ৩৩ বলে ৪৯ রানে অন্য প্রান্তে ঠিকই অপরাজিত ছিলেন ইয়ংস্টার আফিফ হোসাইন। এদিকে হাফ সেঞ্চুরি মিস করলেও দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে কোটি ভক্তদের মন জয় করে নিয়েছেন আফিফ।