অবশেষে ক্ষমা চাইলেন ডি কক

গত ম্যাচে কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি সহমর্মিতা জ্ঞাপনে ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনকে সমর্থন জানাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন কুইন্টন ডি কক। ডি ককের এমন আচরণে হতবাক হয়েছিলেন দেশটির অনেকে। বিতর্কের মুখে অবশেষে সুর নরম করে ক্ষমা চাইলেন ডি কক।

মূলত ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকার (সিএসএ) নির্দেশনা অনুযায়ী এ আন্দোলনে সামিল হয়েছিলেন তারা। এতে সব প্রোটিয়া ক্রিকেটার সমর্থন জানালেও অস্বীকৃতি জানান ডি কক। আর এ নির্দেশনা না মানায় তাকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচের একাদশ থেকে বাদ দিয়েছিল সিএসএ। অবশেষে নিজের ভুল বুঝতে পেরেছেন ডি কক। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটারদের কিংবা অন্য কারো মনে আঘাত দিতে চাননি বলে উল্লেখ করেছেন তিনি। এমন কাণ্ডে বিভ্রান্তি ছড়ানোয় দুঃখ প্রকাশ করেছেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে ডি কক বলেন, ”আমি কোনোভাবেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে না খেলার মাধ্যমে কাউকে অসম্মান করতে চাইনি, বিশেষ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটারদের। হয়ত অনেকে বুঝতে পারেনি যে, মঙ্গলবার সকালে ম্যাচের আগে আমরা একসঙ্গে মিলেমিশেই ছিলাম। আমি অন্যদের মনে আঘাত দেয়ার পাশাপাশি যে বিভ্রান্তি ছড়িয়েছি এবং রাগের কারণ হয়েছি তার জন্য গভীরভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি।’’

একজন ক্রিকেটার হিসেবে বর্ণবাদের বিরোধীতা করার গুরুত্ব বুঝতে পেরেছেন তিনি। ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার আন্দোলনে তার সংহতি প্রকাশে অন্যান্যদের জন্য শিক্ষামূলক হলে তাতে সামিল হতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ”আমি কখনই এটিকে ব্যক্তিগত ইস্যুতে পরিণত করতে চাইনি। আমি বর্ণবাদের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর গুরুত্ব বুঝতে পেরেছি। আমি এও বুঝেছি খেলোয়াড় হিসেবে আমাদের এটি উদাহরণ তৈরি করার মতো। আমার হাঁটু গাড়ার বিষয়টি যদি অন্যদের জন্য শিক্ষামূলক হয় এবং অন্যদের জীবনকে আরও ভালো করে।”