টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সম্প্রচারে ৩৫ ক্যামেরা, থাকছে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি

ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা ও ভবিষ্যৎ নিয়ে যেহেতু হিসেব-নিকেশ, তাই সবার প্রথমে ক্রিকেটের জনক ইংল্যান্ডেই নজর দেওয়া যাক। ক্রিকেটবিশ্বের সবচেয়ে বড় টুর্নামেন্ট ওডিআই বিশ্বকাপের সর্বশেষ আসর বসেছিল ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের মাটিতে। ফাইনালে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে ওডিআই বিশ্বকাপের বন্ধ্যাত্ব ঘুচিয়েছে ‘থ্রি লায়ন্স’। কিন্তু ইতিহাস তৈরির দিনে ক্রিকেট নিয়ে বেশ উদাসীন ছিলেন ইংলিশরা।

নতুন খবর হচ্ছে, আগামী ১৭ অক্টোবর থেকে শুরু হতে যাওয়া আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে থাকছে অত্যাধুনিক সব প্রযুক্তির ব্যবহার। আধুনিক ক্যামেরার ব্যবহারের মাধ্যমে দর্শকদের চোখের সামনে তুলে ধরা হবে বিশ্বকাপের ধ্রুপদী লড়াই।

প্রতিটি ভেন্যুতে খেলা সম্প্রচারের কাজে অন্তত ৩৫টি ক্যামেরা ব্যবহার করা হবে। থাকছে লাইভ প্লেয়ার ট্র্যাকিং ও কুইডিচ ট্র্যাকার। প্রথমবারের মত দেখা যাবে ব্যাট ট্র্যাকিং, যা বল ট্র্যাকিং এবং এজ ডিটেকশনের পাশাপাশি নির্দিষ্ট কিছু ম্যাচে হক আই সুবিধা প্রদান করবে।

দুইশটিরও বেশি দেশে আইসিসির অংশীদার হয়ে প্রায় ১০ হাজার ঘণ্টা লাইভ কভারেজে নিযুক্ত থাকছে বিভিন্ন সম্প্রচার মাধ্যম। একেকটি ম্যাচ শেষ হওয়ার পরপরই হাইলাইটস পাওয়া যাবে আইসিসির ওয়েবসাইট ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের অ্যাকাউন্টে।

এবার খেলা সম্প্রচারে ব্যবহৃত হবে বাংলা ভাষাও, আর তা ভারতের স্টার স্পোর্টস নেটওয়ার্কের কল্যাণে। ক্রীড়া সম্প্রচার মাধ্যমটি ইংরেজির পাশাপাশি হিন্দি, তামিল, তেলেগু, কন্নড়, বাংলা ও মালায়লাম ভাষায় খেলা সম্প্রচার করবে। এছাড়া আইসিসির লাইভ শোগুলোতে শোনা যাবে হিন্দি, উর্দু ও বাংলা ভাষা।