দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রের পা ধরে ভবন থেকে ঝুলিয়ে গ্রেফতার প্রধান শিক্ষক

এবার স্কুল ভবনের উপর তলার বারান্দার রেলিংয়ের বাইরে দিয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রের পা ধরে ঝুলিয়ে রাখার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এই ঘটনার পর ওই স্কুলের প্রধানশিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আজ শুক্রবার এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতের উত্তর প্রদেশের মির্জাপুরে এই ঘটনা ঘটেছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গতকাল বৃহস্পতিবার টিফিনের বিরতিতে খেলার সময় কয়েকজন শিক্ষার্থীর মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ সময় সনু যাদব নামে এক ছাত্র আরেক ছাত্রকে কামড় দেয় বলে অভিযোগ উঠে। অভিযুক্ত সনুকে প্রধানশিক্ষক মনোজ বিশ্বকর্মা বাকিদের কাছে ক্ষমা চাইতে বলেন। ক্ষমা না চাইলে তাকে উপর তলা থেকে নিচে ফেলে দেওয়ার হুমকি দেন।

এরপর ক্ষুব্ধ প্রধানশিক্ষক সনুকে টেনেহিঁচড়ে স্কুলের উপরের তলায় নিয়ে যান। এরপর বারান্দার রেলিংয়ের বাইরে পা ধরে ঝুলিয়ে ক্ষমা না চাইলে তাকে ফেলে দেওয়ার হুমকি দেন। সনুর কান্না আর চিৎকার শুনে অন্য শিক্ষার্থীরা হৈচৈ শুরু করলে প্রধানশিক্ষক তাকে ছেড়ে দেন।

অবশ্য প্রধানশিক্ষকের এহেন কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ আনেননি সনুর বাবা রঞ্জিৎ যাদব। তার মতে প্রধানশিক্ষক যা করেছেন তা ঠিক নয়। কিন্তু প্রধানশিক্ষক সনুর প্রতি ‘ভালোবাসা’ থেকেই এই কাজ করেছেন। এ ব্যাপারে মনোজ বিশ্বকর্মার দাবি, সনুর বাবা শিক্ষকদের সনুকে ‘ঠিক’ করতে বলেছিলেন।

এদিকে মনোজ বিশ্বকর্মা বলেন, সনু আচরণগত সমস্যা ছিল….সে বাচ্চাদের কামড় দিত, শিক্ষকদের সনু কামড় দিয়েছে। তার বাবা আমাদের বলেছিল তাকে ঠিক করতে। উপর তলা থেকে তাকে ভয় দেখানোর জন্য উল্টো করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছিল বলেও জানিয়েছেন তিনি। তবে ওই ঘটনার ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর জুভেনাইল আইনের আওতায় মনোজ বিশ্বকর্মাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।