নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেল সাতক্ষীরার সেই আলোচিত মসজিদটি

মসজিদ আলল্গাহর ঘর। এ মর্মে আলল্গাহতায়ালা সুরা জিনের ১৮ নম্বর আয়াতে বলেন, ‘এবং মসজিদ মূলত আলল্গাহর। সুতরাং আলল্গাহর সঙ্গে তোমরা অন্য কাউকে ডেক না।’ অধিকাংশ ইসলামী চিন্তাবিদের মতে, মসজিদকে আলল্গাহর ঘর বলে রব মূলত মসজিদের পবিত্রতা ও গুরুত্ব বুঝিয়েছেন।

নতুন খবর হচ্ছে, সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগর গ্রামের সেই হাওলাদার বাড়ির বায়তুন নাজাত জামে মসজিদটি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

শুক্রবার (০৮ অক্টোবর) ভোর ৬টার দিকে মসজিদটি খোলপেটুয়া নদীর ভাটার টানে ভেঙে পড়ে। ঘূণিঝড় আম্পানে বেড়িবাঁধ ভেঙে ঐ এলাকায় এখনো জোয়ার ভাটা চলছে।

প্লাবিত এলাকায় পানি সাঁতরে মসজিদটিতে নিয়মিত আজান দিতেন ও নামাজ আদায় করতেন মসজিদের ইমাম ও খতিব হাফেজ মঈনুর রহমান। এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর তা মানুষের হৃদয়কে আকৃষ্ট করে। এরপর সেই ইমামকে নৌকা কিনে দেয় একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। এরপর গত মঙ্গলবার (০৫ অক্টোবর) নৌকার ওপর বিশেষভাবে নির্মিত একটি ভাসমান মসজিদ উপহার দেয় আলহাজ শামসুল হক ফাউন্ডেশন।

স্থানীয় বাসিন্দা মাসুম বিল্লাহ জানান, আম্পানে বন্যতলা এলাকায় খোলপেটুয়া নদীর বাঁধ ভেঙে এলাকা প্লাবিত হয়। এরপর এলাবাসী বাধটি মেরামত করলেও ঘূণিঝড় ইয়াসের সময় সেটি আবারও ভেঙে মসজিদের ভেতরে নদীর জোয়ার ভাটা শুরু হয়। আজ সকালে ভাটির সময় সেটি ভেঙে পড়ে। আজ জুম্মার দিন মসজিদটিও ভেঙে গেল।