নেদারল্যান্ডসকে উড়িয়ে বিশ্বকাপে প্রথম জয় পেল নামিবিয়া

নিজেদের প্রথম ম্যাচে হেরেছে দুই দলই। সুপার টুয়েলভে ওঠার আশা জিইয়ে রাখতে হলে জয়ের প্রয়োজন ছিল দুই দলেরই। আর সেখানে দারুণ জয় পেয়েছে নামিবিয়া। নেদারল্যান্ডসকে সহজেই হারিয়ে বিশ্বকাপ ইতিহাসে নিজেদের প্রথম জয় তুলে নিয়েছে দলটি। পাশাপাশি পরের রাউন্ডে ওঠার লড়াইয়ে ভালোভাবেই টিকে রইল তারা। অন্যদিকে টানা দুটি হারে আসর থেকে প্রায় বিদায়ের পথে ডাচরা।

বুধবার আবুধাবির জায়েদ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে নেদারল্যান্ডসকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে নামিবিয়া। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেটে ১৬৪ রান করে নেদারল্যান্ডস। জবাবে ৬ বল বাকি থাকতেই লক্ষ্যে পৌঁছায় নামিবিয়া।

লক্ষ্য তাড়ায় শুরুটা ভালোই করে নামিবিয়া। দুই ওপেনার স্টিফেন বার্ড ও জেন গ্রিনের জুটিতে আসে ৩৪ রান। এরপর ১৮ রানে ব্যবধানে টপ অর্ডারের তিন উইকেট তুলে নিয়ে দারুণভাবে ম্যাচে ফেরে নেদারল্যান্ডস। তবে ডাচদের হতাশায় ডুবিয়ে অধিনায়ক গেরহার্ড এরাসমাসকে নিয়ে ৯৩ রানের অসাধারণ এক জুটি গড়েন ডেভিড বিসে। এ জুটিতেই জয়ের ভিত পেয়ে যায় দলটি। এরপর অধিনায়ক বিদায় নিলেও বাকি কাজ জনাথন স্মিতকে নিয়ে শেষ করে বিসে।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬৬ রানের ইনিংস খেলে শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন বিসে। ৪০ বলে ৪টি চার ও ৫টি ছক্কায় এ রান করেন তিনি। অধিনায়ক এরাসমাসের ব্যাট থেকে আসে ৩২ রান। ২২ বলে ৪টি চার ও ১টি ছক্কায় এ রান করেন তিনি।

এর আগে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা দারুণ করে নেদারল্যান্ডস। ওপেনিং জুটিতে ৪২ রান করেন দুই ওপেনার ম্যাক্স ও’ডয়েড ও স্টিফেন মাইবার্গ। এরপর ১৩ রানের ব্যবধানে দুটি উইকেট তুলে ম্যাচে ফিরেছিল নামিবিয়া। তবে তৃতীয় উইকেটে কলিন অ্যাকারমানের সঙ্গে ও’ডয়েডের ৮২ রানের দারুণ এক জুটিতে বড় সংগ্রহই পায় দলটি।

টানা দ্বিতীয় ম্যাচে হাফসেঞ্চুরি তুলে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭০ রানের ইনিংস খেলেন ও’ডয়েড। ৫৬ বলে ৬টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে নিজের ইনিংস সাজান এ ওপেনার। অ্যাকারমানের ব্যাট থেকে আসে ৩৫ রান। ৩২ বলে ১টি করে চার ও ছক্কায় এ রান করেন তিনি। শেষ দিকে ২১ রানের কার্যকরী একটি ইনিংস খেলেন স্কট এডওয়ার্ড। নামিবিয়ার পক্ষে ৩৬ রানের খরচায় ২টি উইকেট পান জান ফ্রাইলিঙ্ক।