ভারত-পাকিস্তান ফাইনাল চান সাকলাইন

ভারত-পাকিস্তান খেলা মানেই টানটান উত্তেজনা। খেলার মাঠে কোন দলই হার মেনে নিতে চায়না। তবে শেষ হাসি হাঁসতে হয় যে কোন এক দলকেই।

নতুন খবর হচ্ছে, ভারত–পাকিস্তান ম্যাচ পুরো ক্রিকেট বিশ্বের জন্যই ‘লোভনীয়’ এক বিষয়। এ ম্যাচের আগে যেন দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে যায় ক্রিকেট বিশ্ব। উড়তে থাকে উত্তেজনার রেণু। ম্যাচ শেষেও উত্তেজনার সেই রেশ থেকে যায়—সে তো এবারের টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপে গত রোববার দুই দলের ম্যাচের পরের বিভিন্ন ঘটনাই প্রমাণ করেছে। কিন্তু দুই দেশের রাজনৈতিক অস্থিরতা ও সম্পর্কের টানাপোড়েনের কারণে এখন আর ভারত–পাকিস্তানের দ্বিপক্ষীয় ক্রিকেট সিরিজ দেখা যায় না। শুধু বৈশ্বিক কোনো টুর্নামেন্টেই মুখোমুখি হয় ভারত–পাকিস্তান।

২০১৯ বিশ্বকাপের পর গত রোববারই প্রথম দেখা হয়েছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর। সেই লড়াইয়ে একতরফা জয় পেয়েছে পাকিস্তান। ভারতকে উড়িয়ে দিয়ে শুরু হয়েছে তাদের বিশ্বকাপ। এখন আরেকটি ভারত–পাকিস্তান লড়াই দেখার অপেক্ষা শুরু হয়ে গেছে ক্রিকেট বিশ্বের। সেটা তো এই বিশ্বকাপেও হতে পারে। যদি সেটাই হয়, তাহলে কোন পর্বে আবার দেখা হবে ভারত–পাকিস্তানের? যেহেতু একই গ্রুপে পড়েছে, তাই দুই দলই যদি সুপার টুয়েলভ পার করে সেমিফাইনালে ওঠে, তাহলে নিজেদের মধ্যে দেখা হবে না। দুই দলের আবার দেখা হতে পারে কেবল ফাইনালেই।

বিশ্বকাপের ফাইনালে যদি মুখোমুখি হয় ভারত–পাকিস্তান, বিশ্বজোড়া ক্রিকেটপ্রেমীদের জন্য সেটা হবে স্বপ্নের এক ফাইনাল! শুধু বিশ্বজোড়া ক্রিকেটপ্রেমীরাই কেন, এমন একটি ফাইনালের অপেক্ষায় আছেন এবারের টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাকিস্তানের ভারপ্রাপ্ত কোচ সাকলায়েন মুশতাকও। ভারত–পাকিস্তান যত বেশি ম্যাচে মুখোমুখি হবে, দুই দেশের মধ্যে তত বেশি করে ভালোবাসা ও শান্তির বার্তা ছড়িয়ে পড়বে বলে মনে করেন সাকলায়েন।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে আগামীকালের ম্যাচের আগের সংবাদ সম্মেলনে সাকলায়েন বলেছেন, ‘ভারত যদি ফাইনালে ওঠে, সেটি হবে দারুণ এক ব্যাপার। অন্তত আমার কাছে এটাই মনে হয়। এটা আমি তাদের সুপার টুয়েলভে হারিয়েছি বলে বলছি না। তারা শক্তিশালী এক দল। সবাই এবারের বিশ্বকাপে শিরোপা জয়ের ব্যাপারে তাদের ফেবারিট মনে করে। তাদের সঙ্গে আরেকটা ম্যাচ খেলতে পারলে আমাদের সম্পর্কটা আরও ভালো হবে বলেই আমি এটা চাইছি।’