লিটন অল্পতে ভেঙে পড়েঃ পাইলট

জাতীয় দলে নিয়মিত সুযোগ পেয়ে এই আঙ্গিনায় অর্ধযুগ পার করে দেওয়ার পরও লিটন নিজেকে প্রমাণ করতে ব্যর্থ হয়েছেন। এই কারণ হিসেবে খালেদ মাসুদ পাইলট দায়ী করলেন লিটনের মানসিক দুর্বলতাকে। পাইলট মনে করেন, কিছু খেলোয়াড় আছেন যারা নিজেদের ওপর অতিরিক্ত চাপ নিয়ে ফেলেন এবং সেই চাপ থেকে আর বের হতে পারেন না। আর এই চাপের ভারেই নুইয়ে পড়েন তারা। এমনটাই ঘটেছে লিটনের ক্ষেত্রেও। তবে লিটনের দক্ষতা ও মেধার কোনো ঘাটতি দেখেন না পাইলট।

এ ব্যাপারে পাইলট বলেন, “কিছু খেলোয়াড় আছে যারা চাপ অনেক বেশি নিয়ে ফেলে এবং নিজেকে ঘোলাটে করে ফেলে। নিঃসন্দেহে দক্ষতার দিক থেকে লিটন অসাধারণ খেলোয়াড়, মেধাবী খেলোয়াড়। সে যেদিন রান করবে, সেদিন অসাধারণ। কিন্তু মাথার দিক দিয়ে অনেক পিছিয়ে আছে।”

এ সময় লিটনের মানসিক দুর্বলতা সম্পর্কে পাইলট বলেন, “আমি অনেক দিন যাবত তাকে দেখছি, মনে হয় যেন খুব তাড়াতাড়ি ভেঙে পড়ে। তাড়াতাড়ি ভেঙে পড়া মানুষরা আসলে কঠিন কোনো পরিস্থিতির জন্য কষ্টকর। কারণ কঠিন পরিস্থিতির জন্য আপনি যখন প্রস্তুত হবেন, তখন কিন্তু ভেঙে পড়লে চলবে না। সেখানে আপনাকে চ্যালেঞ্জ নিয়ে খেলতে হবে।”

পাইলট আরও বলেন, “আপনার প্রতিপক্ষরা সবাই চ্যালেঞ্জিং। এমন না যে আপনি ছোট ছোট দলের বিপক্ষে খেলবেন এবং ভেঙে পড়ার পরও পার পেয়ে যাবেন। এখানে চাপ নিয়েই টিকে থাকতে হয়। এমন না যে আপনাকে সহজ বল করবে বা সহজ দিবে, এটা দ্বিতীয় বা তৃতীয় বিভাগের খেলা না। মাথা ঠিক রেখেই আপনাকে আন্তর্জাতিকে খেলতে হবে।”

তিনি বলেন, “যেকোনো খেলোয়াড়ই ভুল করতে পারে, মিস করতে পারে কিন্তু তাদের মুখ দেখলেই বোঝা যায়, কারা মাঠে উপভোগ করছে এবং কারা করছে না। ভারত যখন পাকিস্তানের কাছে হারছিল, বিরাট কোহলি জানপ্রাণ দিয়ে জেতার চেষ্টা করেছে এবং ম্যাচ শেষে সে আবার তার স্বাভাবিক জীবনে ফিরে গেছে। ভালো খেলোয়াড়দের এই বৈশিষ্ট্যগুলো থাকবে।”