শচিন-শেন ওয়ার্নকে মুগ্ধ করা সেই খুদে ক্রিকেটারের দায়িত্ব নিলেন জেলা প্রশাসক

চলতি মাসের গত ১০ অক্টোবর সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয় সাদিদের লেগস্পিন বোলিংয়ের একটি ভিডিও ক্লিপ। যা পৌঁছে যায় কিংবদন্তি ক্রিকেটার শচিন টেন্ডুলকারের কাছে। ১৪ অক্টোবর নিজের ফেসবুক পেজে ভিডিওটি আপলোড করে ভারতের ব্যাটিং ঈশ্বর লিখেছেন, ‘ওয়াও! একজন বন্ধুর কাছ থেকে ভিডিওটি পেলাম। এটি অসাধারণ। খেলাটির জন্য এই ছোট্ট ছেলেটির ভালোবাসা ও প্যাশন এখানে সুস্পষ্ট।’

জানা যায়, বরিশালের ছয় বছর বয়সী সেই শিশু আসাদুজ্জামান সাদিদের দায়িত্ব নিয়েছেন বরিশাল জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার। গতকাল বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) রাতে নগরীর রাজা বাহাদুর সড়কে জেলা প্রশাসকের সরকারি বাসভবনের অফিস কক্ষে সাদিদ ও তার মামা সিরাজুল ইসলাম শুভকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। একই সঙ্গে আমন্ত্রণ জানানো হয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালক আলমগীর খান আলোসহ আরও কয়েকজনকে।

এদিন রাত সাড়ে ৮ টার দিকে মামার হাত ধরে সেখানে উপস্থিত হয় সাদিদ। এ সময় বরিশাল জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার সাদিদকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান। সাদিদের সঙ্গে তিনি দীর্ঘক্ষণ কথা বলেন। ক্রিকেট নিয়ে ছোট্ট সাদিদের স্বপ্নের কথা জানতে চান। সাদিদ জানায় সে বড় হয়ে সাকিব আল হাসানের মতো অল রাউন্ডার হতে চায়। ভবিষ্যতে লাল-সবুজ জার্সি পরে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রতিনিধিত্ব করার স্বপ্নের কথাও জানায় সে। পরে জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার সাদিদের সার্বিক দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তিনি সাদিদের ক্রিকেট প্রশিক্ষণ ও পড়াশোনায় আর্থিক সহায়তা করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।

জানা যায়, সাদিদের নানা বাড়ি বরিশাল নগরীর ৪ নম্বর ওয়ার্ডের মহাবাজ এলাকায়। মায়ের সঙ্গে নানা বাড়িতেই থাকে সাদিদ। মহাবাজ এলাকার উলালঘূনি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থী সে।

এ সময় জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার সাংবাদিকদের বলেন, সাদিদ বিস্ময়েরই অন্য নাম। সাদিদের বোলিং প্রতিভা বরিশাল ও বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে অন্যরকমভাবে চেনাতে পেরেছে। বাংলাদেশি হিসেবে আমি এ নিয়ে গর্ববোধ করছি। আমার চেনা সবাইকেই দেখছি এ নিয়ে গর্ব করতে। সে যেন আনন্দ নিয়ে খেলতে পারে, সে পরিবেশ তৈরি করে দিতে হবে। মনের আনন্দে নিয়মিত খেলতে থাকলে তার জাদুকরি বোলিং আরও ক্ষুরধার হবে। ওর যত্ন নিতে হবে। উপযুক্ত যত্নের অভাবে যেন ওর হাতের জাদু হারিয়ে না যায়। সাদিদের প্রতিভা ধরে রাখতে সব ধরনের সহায়তা আমার পক্ষ থেকে অব্যাহত থাকবে।

তিনি আরও বলেন, সাদিদকে নিয়ে আমরা সবাই স্বপ্ন দেখি। সে বড় হয়ে নিজেকে উজাড় করে দেশের জন্য খেলবে। একদিন তার খ্যাতি শেন ওয়ার্নকেও ছাড়িয়ে যাবে।