আমি বিপিএলকে কখনো ভুলতে পারব নাঃ মোহাম্মদ আমির

পাকিস্তানের পেসার মোহাম্মদ আমির ফিক্সিং কান্ডে নাম জড়িয়ে দীর্ঘদিন খেলার বাইরে ছিলেন। শাস্তি কাটিয়ে প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফিরে দ্রুতই ফেরেন পাকিস্তান জাতীয় দলে। পাকিস্তান দলে সুযোগ পাবার সিড়ি হয়ে কাজ করেছিল অবশ্য বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)। ২০১৫-১৬ মৌসুমে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে চিটাগং ভাইকিংসের হয়ে খেলেছিলেন মোহাম্মদ আমির। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ১৪ উইকেট শিকার করেছিলেন আমির, সেটাও ৯ ম্যাচ খেলে। বোলিং গড় ছিল ১২.৬৪, ওভারপ্রতি রান দিয়েছিলেন ৫.৫৬ করে।

আর এই পারফরম্যান্সের জেরেই দ্রুত পাকিস্তান দলে সুযোগ মেলে আমিরের। আবু ধাবি টি-টেন লিগে বাংলাদেশি মালিকানাধীন দল বাংলা টাইগার্সের হয়ে খেলতে আসা মোহাম্মদ আমির বলছেন বিপিএলকে তিনি কখনোই ভুলতে পারবেন না, বিপিএল লাকি চার্ম কিনা জানতে চাওয়া হলে আমির সম্মত হন।

আবু ধাবিতে উপস্থিত বাংলাদেশি গণমাধ্যমকে দেওয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে আমির বলেন, ‘হ্যা, হ্যা, হ্যা। আমার খুব ভালো করে মনে আছে। ২০১৬ (২০১৫ এর শেষে) সালে আমি ১৪-১৬ (৯ ম্যাচে ১৪) টি উইকেট নিয়েছিলাম। এরপর আমি পাকিস্তান দলে সুযোগ পাই। হ্যা, বিপিএল আমার জন্য লাকি চার্ম। আমি এটা ভুলতে পারব না।’

আমির বলেন, ‘বিপিএল খেলতে পারলে আমি খুব খুশি হতাম। আমি সবসময়ই বাংলাদেশে যেয়ে বিপিএল খেলতে পছন্দ করি। কারণ বাংলাদেশের মানুষ ক্রিকেটপ্রেমী, ক্রিকেট খেলাটাকে তারা ভালোবাসে। তারা আমাদেরকে পছন্দ করে, বাংলাদেশ-পাকিস্তান সিরিজেও অনেকে পাকিস্তান দলকে সমর্থন করেছে। আমি বাংলাদেশে যেতে চেয়েছিলাম। তবে বিপিএল ও পিএসএল কনফ্লিক্ট করছে তাই আমি বিপিএলে এবার খেলতে পারছি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখেছি। তারা (বাংলাদেশের দর্শক) ক্রিকেটকে ভালোবাসে, পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের ভালোবাসে। আমি ২-৩ টা বিপিএল খেলেছি, এশিয়া কাপ ও দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলেছি। তারা ক্রেজি ফ্যান, ক্রিকেট নিয়ে ক্রেজি। এটা অনেক বর কিছু। তারা আমাদের সমর্থন করে, যখনই আমি সুযোগ পাবো আমি বিপিএল খেলতে বাংলাদেশে যাবো।’

তিনি বলেন, ‘আমি মিস করব। আমি বাংলাদেশি খাবার খুব মিস করব। ক্রাউড ও হসপিটালিটি মিস করব। কারণ কোভিডের পর এখন দর্শক খেলা দেখতে পারছে। আমি এটা মিস করব।’

এ সময় আমির বলেন, ‘বাংলাদেশে আমি মুশফিককে পছন্দ করি। কারণ আমি খুলনা টাইগার্সের হয়ে খেলেছি, সে আমার ভালো বন্ধু। মেহেদী হাসান আছে, শান্ত আছে, তারা বেশ ভালো। তামিমও আমার ভালো বন্ধু।’