কেবল বাঁহাতি হওয়াতেই সুযোগ মেলেনি ইমনের

বাংলাদেশের ক্রিকেটের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র ইমন। এই পর্যন্ত অনেক রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন এই তারকা ক্রিকেটার।

নতুন খবর হচ্ছে, বিশ্বকাপ বিপর্যয়ের পর যে ক’জন তরুণকে ডেকে আনা হয়েছিল অনুশীলন ক্যাম্পে, তাদের মধ্যে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় মনে করা হচ্ছিল ওপেনার পারভেজ হোসেন ইমনকে। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে স্কোয়াডে বেছে নেওয়া হয়েছে সাইফ হাসানকে। যিনি কীনা দীর্ঘ পরিসরের ক্রিকেটেই বিবেচিত হন বেশি।

মঙ্গলবার পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের জন্য ১৬ জনের দল দেয় বিসিবি। তাতে ওপেনার হিসেবে নাঈম শেখের পাশাপাশি আছেন সাইফ। বাংলাদেশের টেস্ট দলে জায়গা থিতু করার লড়াইয়ে থাকা সাইফ এবার পড়ছেন নতুন চ্যালেঞ্জে।

দল ঘোষণার দিন মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ম্যাচ পরিস্থিতির অনুশীলনেও মিলেছিল ব্যাটিং কম্বিনেশনের ধারণা। ওপেন করতে নাঈমের সঙ্গে নামেন সাইফ।

ঘরোয়া টি-টোয়েন্টিতেও তিনি আগ্রাসী হিসেবে পরিচিত নন। অনেকটা এক প্রান্ত ধরে খেলতেই পছন্দ করেন। ছক্কা মারার সামর্থ্য থাকলেও দ্রুত রান আনতে খুব একটা দেখা যায় না তাকে। গত ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ টি-টোয়েন্টিতে ১৪ ইনিংসে ২৮.০৭ গড়ে ৩৬৫ রান করেন সাইফ। স্ট্রাইক রেট ছিল কেবল ১১৩।

অন্য দিকে পারভেজ স্বীকৃত ক্রিকেটে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে দ্রুততম সেঞ্চুরির মালিক। গত বছর বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে ফরচুন বরিশালের হয়ে ৪২ বলে করেন সেঞ্চুরি।

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জানিয়েছেন, মূলত টিম ম্যানেজমেন্টের চাহিদা অনুযায়ী ওপেনিংয়ে ডান-বামের সমন্বয় রাখতে চেয়েছেন তারা। সে কারণেই পারভেজের বদলে বেছে নেওয়া হয়েছে সাইফকে।

বাংলাদেশের কোচ রাসেল ডমিঙ্গো বিভিন্ন সময় বলেছিলেন, তিনি বরাবরই ব্যাটিং অর্ডারে ডান-বামের সমন্বয়ের পক্ষে। টপ অর্ডারে নাজমুল হোসেন শান্ত থাকায় পারভেজকে নিলে প্রথম তিনজনই হন বাঁহাতি। এখানেই সুযোগ ঘটেছে সাইফের।