খেলোয়াড়রা তো আর পেট্রলে চলে নাঃ শাস্ত্রী

ভারতের ক্রিকেটকে আজকের এই উচ্চ পর্যায়ে নিয়ে আসতে যে কয়জন সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন তাঁর মধ্যে শাস্ত্রী অন্যতম।

নতুন খবর হচ্ছে, বিশ্বকাপে ভারতীয় দলের ব্যর্থতার পেছনে জৈব সুরক্ষা বলয় বা বায়োবাবলকে দায়ী করছেন ভারতের সদ্য সাবেক কোচ রবি শাস্ত্রী। তার দাবি, বায়োবাবলের কঠিন পরিবেশে থেকে খেললে স্বয়ং ডন ব্র্যাডম্যানের ব্যাটিং গড়ও কমে যেত।

ভারতের বিদায়ী এই কোচ বিদায়বেলায় বায়োবাবলকে পারফরম্যান্সের মুখ থুবড়ে পড়ে যাওয়ার পেছনে দায়ী করেছেন। তার দাবি- বায়োবাবল কোনো অজুহাত নয়, বাস্তবিক অর্থেই এটি মাথাব্যথা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

শাস্ত্রী বলেন, ‘একটা কথাই বলব, এটা কোনো অজুহাত নয়, এটা বাস্তব। যখন আপনি বায়োবাবলে টানা ছয় মাস ধরে থাকছেন… এই দলের অনেক খেলোয়াড় আছে যারা তিনটি ফরম্যাটেই খেলে। গত ২৪ মাসে তারা ২৫ দিন বাড়িতে থাকতে পেরেছে।’

বিরাট কোহলি হন কিংবা হার্দিক পান্ডিয়া, কিংবা ক্রিকেটের ‘ডন’ ডন ব্র্যাডম্যান, বায়োবাবলে ছন্দ হারানো অস্বাভাবিক নয়- এমন দাবি করে শাস্ত্রী জানান, ‘আপনি কে তাতে কিছু যায় আসে না। আপনার নাম যদি ব্র্যাডম্যানও হয়, আপনি যদি বায়োবাবলে থাকেন, তাহলে আপনার গড় কমে আসতে বাধ্য; কারণ আপনি মানুষ।’

শাস্ত্রীর অধীনে ভারত কোনো বৈশ্বিক শিরোপা জিততে পারেনি। যদিও পরিসংখ্যানের বিচারে তাকে সফল না মেনে উপায় নেই। শাস্ত্রী বিদায়বেলায় দল নিয়ে জানিয়েছেন স্বস্তি।

শাস্ত্রী অবশ্য সতর্ক করেছেন, বায়োবাবলে খেলা চালিয়ে গেলে ভবিষ্যতে আরও খারাপ সময় আসবে, ‘এখন হোক বা পরে, এই বায়োবাবল ফেটে যাবে, তাই আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে। খেলোয়াড়রা তো আর পেট্রলে চলে না।’