টানা হারের পর অবশেষে জয় পেল ভারত

অবশেষে চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জয়ের মুখ দেখল ভারত। টানা দুই ম্যাচে হারের পর আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৬৬ রানে জয়লাভ করেছে বিরাট কোহলির দল। আফগানিস্তানের বিপক্ষে শুরুতে রোহিত-রাহুলের রেকর্ড শতরানের জুটির পর ঝড় তুলল হার্দিক পাণ্ডিয়া-রিশাব পান্থ। তাদের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে বিশ্বকাপের বর্তমান আসরের সর্বোচ্চ ২১০ রান সংগ্রহ করে ভারত। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৪৪ রান সংগ্রহ করে আফগানিস্তান।

গতকাল আবুধাবিতে টিকে থাকার ম্যাচে শুরু থেকেই দুর্দান্ত ব্যাটিং করেন দুই ভারতীয় ওপেনার কেএল রাহুল-রোহিত শর্মা। পরে ২১ বলে ৬৩ রানের ঝড় তোলেন রিশাব পান্থ ও হার্দিক পাণ্ডিয়া। গুলবাদিন-রশিদদের বোলিংয়ে বাজে দিনে ১২০ বলে সর্বোচ্চ ২১১ রানের পাহাড় ডিঙাতে হবে। এদিন রোহিত শর্মা ও কেএল রাহুল শতরানের জুটি পার করার রেকর্ড গড়েন। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে তাদের ওপর উদ্ধোধনী জুটিতে বেশি ৫ বার শতরান পার করেছেন পাকিস্তানের বাবর আজম—মোহাম্মদ রিজওয়ান। এখনও চারবার ভারতকে উদ্ধোধনী জুটিতে শতরান পার করে দিয়েছেন তারা রোহিত-রাহুল।

আজ তাদের ভিতে দাড়িয়েই বড় স্কোর গড়ে ভারত। ৪৭ বলে ৭৪ রান করে রোহিত শর্মা ফেরার পর বেশি সময় থাকতে পারেননি কেএল রাহুলও। রোহিত আউট হবার ৭ রানের ব্যবধানে ৪৮ বলে ৬৯ নরান করে ফেরেন রাহুল। পরে অবশ্য তাণ্ডব চালান উইকেটরক্ষক ব্যাটার রিশাব পান্থ ও হার্দিক পাণ্ডিয়া। ২১ বলের জুটিতে দুজনের ব্যাট থেকে আসে ৬৩ রান! ১৩ বলে ৩ ছয় ১ চারে অপরাজিত থাকেন পান্থ। সমান বলে ৪ চার আর ২ ছয়ে ৩৫ রান করেন হার্দিক পাণ্ডিয়া।

তাতেই আসরের সর্বোচ্চ স্কোর গড়ে ভারত। জবাবে খুব ভালো শুরু পায়নি আফগানরা। পাওয়ার প্লেতেই তারা হারান তাদের ২ উইকেট। পরে আফগান শিবিরে তোপ দাগেন ভারতীয় পেসার মোহাম্মদ শামি। নিজের কোটার ৪ ওভারে ৩২ রানে নেন ৩ উইকেট। অবশ্য শুরুর ব্যাটিং বিপর্যয় মাঝের দিকে দারুণ ভাবে সামলে নেন মোহাম্মদ নবী ও করিম জানাত। ৫৯ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলা দলকে তারা দুজনে টেনে নেন ১২৬ রান পর্যন্ত। অবশ্য তারও আগেই ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় আফগানিস্তান।

এদিকে শেষের দিকে ২২ বলে করিম জানাতের ঝড়ো ৪২ রানে হারের ব্যবধানই কমাতে পারে। দলে ফিরে দুর্দান্ত বোলিং করেছেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। নিজের কোটার ওভারে মাত্র ১৪ রান খরচ করেছেন, নিয়েছেন দুটি উইকেট৷ দুর্দান্ত জয়ে আসরে টিকে থাকলেও পয়েন্ট টেবিলে খুব বেশি আগাতে পারেনি কোহলির দল। ৩ ম্যাচে এক জয়ে তারা রয়েছে গ্রুপ-২ এর ৪ নম্বর অবস্থানে। এই গ্রুপের শীর্ষে রয়েছে পাকিস্তান। ৪ ম্যাচে ২ জয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে এই গ্রুপের পয়েন্ট টেবিলের দুই নম্বরে আছে আফগানিস্তান।