বদরুন্নেসার ছাত্রীকে বাসে ধর্ষণের হুমকি: চালক-হেলপার গ্রেপ্তার

বাংলাদেশে গত এক সপ্তাহে বেশ কয়েকটি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে৷ বাদ যায়নি প্রতিবন্ধী কিংবা ছয় বছরের শিশুও৷ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দলবেঁধে ধর্ষণ করা হয়েছে এসব নারী ও শিশুকে৷ বিচার না হওয়াকে এই পরিস্থিতির জন্য দুষছেন মানবাধিকারকর্মীরা৷

নতুন খবর হচ্ছে, পুরান ঢাকার বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রীকে বাসে ধর্ষণের হুমকি দেওয়া ‘ঠিকানা পরিবহনের’ চালক মো. রুবেল এবং হেলপার মো. মেহেদী হাসানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। আজ রোববার (২১ নভেম্বর) দুপুরে প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থীরা জড়িতদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তারের আল্টিমেটাম দেওয়ার পর তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

র‌্যাব বলছে, আজ রাত ৯টায় কারওয়ান বাজারস্থ র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন করে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানানো হবে।

এর আগে আজ সকাল ৯টা থেকে রাজধানীর বকশিবাজার মোড়ে সড়ক অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা। পরে অভিযুক্ত বাসের হেলপারকে গ্রেপ্তারসহ ৮ দফা দাবি জানিয়ে দুপুর ১২টার দিকে আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দেন তারা।

তাদের দাবির মধ্যে ছিলো, শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া নিশ্চিত করা, ছাত্র-ছাত্রীদের সঙ্গে হয়রানিমূলক আচরণ না করা, শিক্ষার্থীদের বাস থেকে নামানোর সময়ে বাস থামাতে হবে, শিক্ষার্থীদের বাসে উঠতে দেওয়া, বাসে নারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, ধর্ষণের হুমকি প্রদানকারীকে আইনের আওতায় আনা, রায়েরবাগ-শনিআখড়া-কাজলা ও সাইনবোর্ড এলাকায় সব ধরনের বাস থামাতে হবে এবং শিক্ষার্থীদের উঠতে বাধা দেওয়া যাবে না।

ওই সময়ে আন্দোলনে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থী মারিয়া আক্তার বলেন, হাফ ভাড়া দিতে চাওয়ায় আমাদের সহপাঠীকে ধর্ষণের হুমকি দিয়েছে এক বাসের হেলপার। এটা খুবই উদ্বেগজনক ও আতঙ্কের। আমরা এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই। এ ধরনের পরিবহন শ্রমিককে গ্রেপ্তার করে অবশ্যই আইনের আওতায় আনতে হবে।