বন্ধ বাস, চাপ পড়‌ছে রেল ও আকাশ প‌থে

দেশে জ্বালানি তেলের দাম হঠাৎ বৃদ্ধির প্রতিবাদে বাস ও পণ্যবাহী পরিবহন মালিকরা ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন গতকাল শুক্রবার থে‌কে। সে কারণে শুক্র ও শনিবার যানবাহন চলাচল করেনি। সপ্তাহের গুরুত্বপূর্ণ দু’দিন সড়কপথে যান চলাচল না করায় চাপ বেড়েছে রেল ও আকাশপথে। অন্যান্য সময়ের চেয়ে ১০ ভাগ যাত্রী বে‌ড়ে‌ছে এই দুই প‌থে। বি‌ভিন্ন রু‌টে রে‌লের পাশাপা‌শি ফ্লাইটের টিকিটও মিলছে না।

এর জন্য রেলস্টেশনে ভিড় বেড়েছে যাত্রীদের। যাত্রীদের অনেক বেশি চাপ সামাল দেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার মাসুদ সরওয়ার বলেন, ‘যাত্রীর যত চাপই হোক, আমরা সাধ্যমত সেবা দেওয়ার চেষ্টা করবো। বিভিন্ন ট্রেনে অতিরিক্ত বগি লাগানো হবে, যাতে যাত্রীরা নিরাপদে এবং অল্প খরচে তাদের গন্তব্যে যেতে পারেন।’

অন্য‌দি‌কে, দেশের বেসরকারি এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ বলছেন- এমনিতেই বৃহস্পতি, শুক্র ও শনিবারে ফ্লাইটে যাত্রী বেশি থাকেন। হয়‌তো সামান্য কিছু সিট ফাঁকা থাকে। তবে গত দু‌দিন যাত্রীরা সড়কপথে যেতে না পারায় অনেকেই প্লেনে গন্তব্যে ফিরছে। এ কারণে আকাশপথের প্রায় সব টিকিটই বিক্রি হয়ে যাচ্ছে।

তারা জানান, সাধারণত বৃহস্প‌তি, শুক্র ও শ‌নিবার কক্সবাজার ও সিলেটের টিকেটের চাপ একটু বেশি থাকে। তবে এই সপ্তাহে প্রতিটি রুটের টিকিটই প্রায় শেষ পর্যায়ে।

এ ব্যাপারে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) মো. কামরুল ইসলাম বলেন, ‘অনেকে বাড়ি ফেরার জন্য শুক্র-শনিবারকে বেছে নেয়। সপ্তাহের এই দিনগুলোতে যাত্রীর চাপ একটু বেশি থাকে। তবে ধর্মঘটের কার‌ণে জরুরি প্রয়োজনে গন্তব্যে পৌঁছাতে অনেকেই টিকিটের জন্য যোগাযোগ করছেন। আমা‌দের প্রতি রুটেই যাত্রী বেড়েছে।’

এদিকে নভোএয়ারের হেড অব সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং মেসবাহ উল ইসলাম বলেন, ‘শুক্র-শনিবারে এমনিতেই ট্রাফিক হাই থাকে। তবে ধর্মঘটের কারণে সব রুটেই অন্তত ১০ ভাগ যাত্রী বেড়েছে।’