মেসি-নেইমারদের হারিয়ে শীর্ষে ম্যান সিটি

রাতে দুদলের প্রথম লড়াইয়ে আধিপত্য ছিলো ম্যানচেস্টার সিটির। কিন্তু লিওনেল মেসির দারুণ নৈপুণ্যে এদিন প্রতিপক্ষের মাঠ থেকে হেরে আসে সিটিজেনরা। এবার, ঘরের মাঠে পিএসজিকে পেয়ে সেই হারের প্রতিশোধ নিল পেপ গার্দিওলার দল। শুরুতে পিছিয়ে পড়লেও দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে ম্যাচ জিতে নিলো স্বাগতিকরা।

প্রতিশোধ নেওয়ার ম্যাচ জিতে আসরের গ্রুপ সেরা হওয়া নিশ্চিত হলো ইংলিশ চ্যাম্পিয়নদের। (বুধবার) রাতে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে ঘরের মাঠে ম্যাচটি ২-১ গোলে জিতেছে ম্যানচেস্টার সিটি। সিটিজেনদের হয়ে গোল দুটি করেছেন রাহিম স্টার্লিং ও গ্যাব্রিয়েল জেসুস। আর পিএসজির হয়ে একমাত্র গোলটি করেন কিলিয়ান এমবাপ্পে।

প্রথম লেগে হারের প্রতিশোধ নিতে এদিন ইত্তিহাদে ম্যাচের শুরু থেকেই আধিপত্য বজায় রাখে ম্যান সিটি। বল দখলের লড়াইয়ে ৫৪ শতাংশ বল নিজেদের পায়ে রাখে স্বাগতিকরা। গোলমুখে শটের ক্ষেত্রেও মেসিদের চেয়ে দ্বিগুণ এগিয়ে ছিল পেপ গার্দিওলার দল। সব মিলিয়ে পিএসজির গোলমুখে ১৬টি শট নেয় সিটি, যেখানে মৌরিচিও পচেত্তিনোর দল শট নিতে পারে কেবল ৭টি।

এদিকে আক্রমণ প্রতি আক্রমণে দুদলের প্রথমার্ধ গোলশূন্য ড্রয়ে শেষ হয়। বল দখল কিংবা গোলমুখে শটে পিছিয়ে থাকলেও প্রথম গোলটি করে পিএসজিই। বিরতির পর মাঠে ফিরে ৫০তম মিনিটে সফরকারীদের এগিয়ে দেন কিলিয়ান এমবাপ্পে। তবে, সেই লিড বেশিক্ষণ ধরে রাখতে পারেনি ফরাসিরা।

ম্যাচের ১৩ মিনিট পরই সমতায় ফিরে ম্যানচেস্টার সিটি। ম্যাচের ৬৩তম মিনিটে গ্যাব্রিয়েল জেসুসের পাস থেকে দারুণ ফিনিশিংয়ে গোলটি করেন রাহিম স্টার্লিং। ইংলিশ ফরোয়ার্ডের গোলে যোগানদাতা জেসুসই পিএসজির কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেন।

৭৬তম মিনিটে বার্নাডো সিলভার পাস থেকে গোল করে স্বাগতিকদের জয় অনেকটাই নিশ্চিত করে ফেলেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড। পুরো ম্যাচে বেশ কয়েকবার সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি পিএসজির আক্রমণভাগে দু সেনানী নেইমার-মেসিরা। ম্যাচের বাকি সময় আর কোন গোল না হলে ২-১ গোলের জয়ে মাঠে ছাড়ে পেপ গার্দিওলার দল।

আর এই জয়ে ৫ ম্যাচে ৪ জয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে এ’ গ্রুপের সেরা হয়ে নক আউট পর্ব নিশ্চিত করল ম্যান সিটি। সমান ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে কোনরকম শেষ ষোলো নিশ্চিত করেছে পিএসজিও।