রাজধানীর বেইলি রোডে রিকশাকে চাপা দেওয়ার ঘটনায় স্কুল শিক্ষার্থী আটক

মৃত্যু অনিবার্য। কেউ তা থামাতে পারবে না। তবে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু মেনে নেওয়া কঠিন। কিন্তু সড়ক দুর্ঘটনা নামক গণমৃত্যুর এই ফাঁদ কি কিছুতেই দূর করা যায় না?

নতুন খবর হচ্ছে, চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর পুলিশের সহায়তায় চুয়াডাঙ্গা থেকে তাদেরকে আটক করা হয়

রাজধানীর বেইলি রোডে বেপরোয়া প্রাইভেটকার চাপায় রিকশা আরোহী পরিবারকে মারাত্মকভাবে আহত করার ঘটনায় একজনকে আটক করেছে তেজগাঁও বিভাগ পুলিশ। আটক ছেলেটির নাম তাসকিন। সে উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের শিক্ষার্থী।

রবিবার (২১ নভেম্বর) ভোরে চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর পুলিশের সহায়তায় চুয়াডাঙ্গা থেকে তাকে আটক করা হয়। এ সময় ওই প্রাইভেটকারটিও জব্দ করা হয়।

আটক তাসকিনকে ঢাকায় আনা হচ্ছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের একটি পেজে এ কথা জানিয়েছে তেজগাঁও পুলিশ। এ ঘটনায় অপ্রাপ্তবয়স্ক চালক তাসকিনের বাবা ও বড় ভাইকে হাতিরঝিল থানায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

এর আগে দুইদিন থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। ভিডিওতে দেখা যায়, একটি কালো রঙের প্রাইভেট কার বেপরোয়া গতিতে পিছন থেকে একটি চলন্ত রিকশাকে আঘাত করছে। ফলে রিকশা আরোহী ও আরোহীর কোলে থাকা বাচ্চা ছিটকে পড়ে মারাত্মকভাবে আহত হয়। আহত দুজনই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।