বগুড়ার শহীদ চাঁন্দু স্টেডিয়ামে জুয়ার আসর, মেলা ও গরুর হাট বসাবে: হিরো আলম

এবার বগুড়া শহীদ চাঁন্দু স্টেডিয়ামে ক্রিকেট বোর্ড বিসিবির কার্যক্রম পুনর্বহাল ও খেলা ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলম। তিনি বলেছেন, ‘খেলা ফিরিয়ে না আনলে এই স্টেডিয়ামে জুয়ার আসর, গরুর হাট বা মেলা বসবে।’ আজ মঙ্গলবার ৭ মার্চ দুপুরে তিনি বগুড়ার শহীদ চাঁন্দু স্টেডিয়াম প্রাঙ্গণে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে এই দাবি জানান।

এ সময় হিরো আলম বলেন, ‘শহীদ চাঁন্দু স্টেডিয়াম থেকে ১৭ কর্মকর্তা-কর্মচারী ও মালামাল সরিয়ে নেওয়া বগুড়াবাসীর জন্য লজ্জার। গত ১৫ বছরে জেলার কী কোনও উন্নয়ন হয়েছে? বগুড়াবাসীকে কী দেওয়া হয়েছে? সম্প্রতি উপ-নির্বাচনে বগুড়া সদর আসনে ৫০ বছর পর নৌকা মার্কার রাগেবুল আহসান ভাই নির্বাচিত হয়েছেন। আমিও তার বিপক্ষে ভোট করেছি। রিপু ভাইকে বলতে চাই, বগুড়ার মানুষ তাদের রক্ষার দায়িত্ব নেওয়ার জন্য আপনাকে ভোট দিয়েছেন। আপনি দায়িত্বে থাকা অবস্থায় বিসিবি কীভাবে স্টেডিয়ামে থেকে সব কিছু প্রত্যাহার করলো? এই দীর্ঘ ১৫ বছরে আপনারা বগুড়ায় জাতীয় কোনও খেলাও দেননি।’

তিনি আরও বলেন, ‘বগুড়ার বিমানবন্দরে গরু বাছুর পালন ও ধান চাষ হয়। এখন শুধু আছে এক মেডিক্যাল কলেজ। বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য আন্দোলন করেও আমাদের লাভ হয় না। বগুড়ার মাটিকে আপনারা ঘাঁটি না বানিয়ে উজাড় করে দিয়েছেন। এটা লজ্জার; এ জন্য ধিক্কার জানাই আমি।’

হিরো আলম বলেন, ‘বগুড়া শহীদ চাঁন্দু স্টেডিয়ামের বিরুদ্ধে এক শ্রেণির সিন্ডিকেট কাজ করছে। তারা চায় না বগুড়ায় স্টেডিয়াম থাকুক। এরা চায়, স্টেডিয়াম থেকে সব চলে যাক। আর যখন এ স্টেডিয়াম পড়ে থাকবে তখন ওই লোকেরা মাঠে জুয়ার বোর্ড বসাবে, মেলা করার চেষ্টা করবে, কোরবানের ঈদ এলে গরুর হাট বসাবে।’

এ সময় তিনি প্রশ্ন করে বলেন, ‘তাহলে স্টেডিয়াম কি মেলা, হাট বা জুয়ার বোর্ড বসানোর জন্য? সিন্ডিকেট চায়, স্টেডিয়াম পড়ে থাকুক। তখন ওরা ৯৯ বছরের জন্য মাঠ লিজ নিয়ে যা ইচ্ছা তাই করবে।’ এক প্রশ্নের জবাবে হিরো আলম বলেন, ‘বগুড়া শহীদ চাঁন্দু স্টেডিয়াম জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের কাছে হস্তান্তরে বিসিবির কোনও দোষ নেই। তারা এখানে কাজ করার চেষ্টা করেছে। কিন্তু ওই সিন্ডিকেট তাদের বাধা দিচ্ছে। তারাই বিসিবির খেলা আসার আগে চিঠি দিয়ে বাধা দিয়েছে, খেলা না দেওয়ার জন্য।’

এ সিন্ডিকেট কে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘সেটা আপনারা সবই জানেন। আমি এখন তাদের নাম বলতে চাই না।’ এরপর সেখানে মাঠ বাঁচাতে মানববন্ধন করেন হিরো আলম। পর সঙ্গে থাকা ব্যক্তিদের নিয়ে বগুড়া শহীদ চাঁন্দু স্টেডিয়াম পরিদর্শন করেন। জানা গেছে, গত ২ মার্চ বগুড়া জেলা ক্রীড়া সংস্থার বিরুদ্ধে খেলা আয়োজন না করার জন্য দায়ী করে করে এ স্টেডিয়াম থেকে মালামাল ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মিরপুর স্টেডিয়ামে প্রত্যাহার করেন বিসিবি। পরে তাদের রাজশাহী ও রংপুর স্টেডিয়ামে বদলি করা হয়েছে।মাহবুব হামিদ তারা।