শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ের আভাসে কৃষকদের দ্রুত ধান কাটার পরামর্শ

এখন হাওরাঞ্চলে শুরু হয়েছে ধান কাটা। শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ের আভাসে কৃষকদের দ্রুত ধান কাটার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। হাওরে সনাতন পদ্ধতি ও মেশিনের মাধ্যমে ধান কাটা ও মাড়াই চলছে। কৃষকের পাশাপাশি কিষাণিরা ধান ঝাড়াই করে শুকিয়ে গোলায় তুলতে ব্যস্ত। এবার লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি উৎপাদনের আশা করছে কৃষি বিভাগ।

এদিকে সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী বলেছেন, প্রতি বছর বন্যা আর শ্রমিক সংকটে ধান কাটা নিয়ে বিপাকে পড়তে হয় কৃষকদের। এবার শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ের আভাসে ফসলহানির ঝুঁকি এড়াতে হাওর এলাকার বিভিন্ন হাট-বাজার ও জনবহুল স্থানে করা হচ্ছে মাইকিং। কৃষকদের আতঙ্কিত না হয়ে দ্রুত পাকা ধান কাটার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

নেত্রকোণা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর উপ-পরিচালক মোহাম্মদ নুরুজ্জামান জানিয়েছেন, নেত্রকোণাতেও পাকা ধান ঘরে তোলা শুরু করেছে কৃষকরা। পাশাপাশি কিষাণিরা ধান ঝাড়াই করে শুকিয়ে গোলায় তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন।

এদিকে হবিগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর উপ-পরিচালক মো. নূরে আলম সিদ্দিকী জানান, হবিগঞ্জেও ধান কাটা ও মাড়াইয়ে ব্যস্ত কৃষকরা। আশপাশের জেলা থেকে যোগ দিয়েছে শ্রমিকরা। কোনো কোনো হাওরে ধান কাটা, মাড়াই চলছে মেশিনের মাধ্যমে। আবার কোনো এলাকায় শ্রমিকরা ধান কাটছে, মাড়াই-ঝাড়াই করছেন সনাতন পদ্ধতিতে।