বাড়ি লাইফ স্টাইল শীতকালে নিয়মিত গোসলই ডেকে আনবে বিপদ!

শীতকালে নিয়মিত গোসলই ডেকে আনবে বিপদ!

আপনে জানেন কি? শীতকালে প্রতিদিন গোসল করা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক। এ ব্যাপারে গবেষকরাই বলেছেন, শীতকালে প্রতিদিন গোসল করার দরকার নেই। কারণ শীতে ত্বকে বেশি টানটান বা শুষ্কভাব থাকে। এ সমস্যাগুলো হয় পানি থেকে। গবেষকরা বলেছেন, শীতকালে ত্বক নিজে থেকে পরিষ্কার করে নিতে হবে। যা গোসলের থেকে বেশি উপকারি। গায়ে ময়লা জমলে বা ঘাম হলে আমরা সাধারণত গোসল করে থাকি। আর মাঝে মাঝে সামাজিক রীতি মানার জন্যও নিয়মিত গোসল করতে হয়। শীতকালে প্রতিদিন গোসল না করে দু’দিন পর একদিন করতে পারেন।

যদি প্রতিদিন গোসল করতেই হয় তবে ১০ মিনিটের বেশি কোনোভাবেই গোসল করবেন না। অতিরিক্ত পানি ত্বক বেশি শুষ্ক করতে সাহায্য করে থাকে। যতটা সম্ভব শীতকালে পানি থেকে দূরে থাকুন। শীতকালে গোসল মানেই হালকা গরম পানি ব্যবহার যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। কারণ এতে ত্বক অনেক বেশি শুষ্ক ও রুক্ষ হয়ে আর্দ্রতা হারায়।

তাছাড়া আর্দ্রতা ধরে রাখতে শরীর থেকে এক ধরণের প্রকৃতিক তেল নিঃসরণ হয়ে থাকে। এ তেলও নষ্ট হয়ে যায় গরম পানি দিয়ে গোসল করলে। তাই শীতকালে গোসল করলে খুবই অল্প সময়ের জন্য গোসল করতে হবে। শীতকালে শুকনো সাবান ব্যবহার করতে হবে। আর চুলে গ্লিসারিন জাতীয় শ্যাম্পু বা সাবান ব্যাবহার করতে পারেন। বডি ওয়াশ ব্যবহার করলে বেশি পরিমাণ পানি দিয়ে গোসল করতে হয় তাই এটি ব্যবহার না করাই ভালো। এ কারণে শুকনো সাবান ব্যবহার করতে হবে।

তাছাড়া শরীরে প্রতিদিনই নানা রকম রাসায়নিক দ্রব্য উৎপন্ন হয়ে থাকে। আবার এ রাসায়নিক দ্রব্য অনেক সময় বিষে পরিণত হয়। এ বিষ থেকে ত্বককে রক্ষা করতে ত্বকের মধ্যেই উপকারি ব্যাকটেরিয়া জন্মায়। কিন্তু আপনি যদি প্রতিদিন গরম পানি দিয়ে গোসল করেন তবে ওই উপকারি ব্যাকটেরিয়াগুলো নষ্ট হয়ে যায়। ফলে ত্বক ক্ষতগ্রস্থ হয়। এ জন্য ত্বক বিশেষজ্ঞরা অনেক সময় ধরে গোসল করতে বারণ করে থাকেন। আর গরম পানিও বেশি ব্যবহার করা যাবে না।

এছাড়াও নখ শীতকালে খুব তাড়াতাড়ি ভেঙে যায় বা খসখসে হয়ে যায়। অনেক সময় ধরে গোসল করলে নখগুলো সাদা হয়ে যায়। কারণ নখ সবচেয়ে বেশি পানি শোষণ করে। ফলে নখ আর্দ্রতা হারিয়ে রুক্ষ হয়ে ও খুব তাড়াতাড়ি ভেঙে যায়। আপনি রোজ গোসল করতেই পারেন কিন্তু ত্বক রক্ষা করতে হলে গোসলের ক্ষেত্রে এ নিয়মগুলো মেনে চলা উচিত।

সুতরাং, অনিয়মিত গোসল আসলে স্বাস্থ্যকর। তাই ঠান্ডায় দু’-একদিন গোসলে ‘ডুব’ মারলে আর লজ্জা বা সংকোচের কিছু নেই!